র‌্যাবের হাতে আটক সেলিম হাওলাদার। ছবি : সংগৃহীত

সেলিম হাওলাদারম নড়িয়া উপজেলার চন্ডিপুর এলাকার এক প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পরে তাদের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্কও স্থাপন হয়। কিন্তু সেলিম তাদের গোপন অভিসারের কিছু দৃশ্য কৌশলে মোবাইলে ধারণ করে রাখেন। পরে সেই আপত্তিকর দৃশ্য অনলাইনে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ওই নারীর কাছ থেকে কয়েক দফায় মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেন তিনি।

এক সপ্তাহ আগে আপত্তিকর সেই ভিডিও ওই নারীর পরিবারের কাছে সরবরাহ করে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন সেলিম। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর পরিবার আইনগত সহায়তা চেয়ে র‌্যাব-৮ মাদারীপুর ক্যাম্পে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। এরই প্রেক্ষিতে র‌্যাবের একটি দল নড়িয়া উপজেলার পাঁচগাও এলাকায় অভিযান চালিয়ে সেলিমকে আটক করে।

২২ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার ভোর ৬টার দিকে নড়িয়া উপজেলার পাঁচগাও গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটক মো. সেলিম হাওলাদার (২৫) উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের পাঁচগাঁও গ্রামের মৃত মতিউর রহমান হাওলাদারের ছেলে।
র‌্যাব-৮ (সিপিসি-৩) মাদারীপুর ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন জানান, গৃহবধূর স্বামী প্রবাসে থাকার সুযোগে আটক বখাটে আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে চাঁদা দাবি করে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর পরিবার আইনি সহায়তা চায়। পরে অভিযান চালিয়ে বখাটে সেলিমকে আটক করা হয়।

তিনি জানান, সেলিমকে আটকের পর তার কাছ থেকে আপত্তিকর ভিডিও ও ছবি সম্বলিত মোবাইল ও মেমোরি কার্ড জব্দ করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযোগের বিষয়ে সত্যতা স্বীকার করেছে সেলিম। তাকে নড়িয়া থানায় হস্তান্তর করা হবে বলে জানান তিনি।

আজকের পত্রিকা/জেবি