‘সাংবাদিক’ বা ‘সংবাদকর্মী’ যাদেরকে বলা হয়ে থাকে জাতির বিবেক। বিবেকের কাছে দায়বদ্ধতা থেকে যারা নিজ জীবন বাজি রেখে সত্য তুলে ধরে ঘুমন্ত জাতিকে জাগিয়ে তোলেন। ছোটো-বড়, গরীব-ধনী সব শ্রেণি পেশার মানুষের মাঝে ফিরিয়ে আনেন ভারসাম্যতা। গড়ে তোলেন ভাতৃত্বময় একটি সচেতন জাতি।

সেই সব পোশাদার সংবাদকর্মীদের ঈদ কেমন করে কাটে জানাচ্ছেন জাগো নিউজ, দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ ও বিজনেস স্ট্যান্ডার্ট এর সাতক্ষীরা প্রতিনিধি আকরামুল ইসলাম-

মফস্বল সংবাদকর্মীদের ছুটি নেই। তাদের জন্য সংবাদের ক্ষেত্রে নির্ধারিত কোন বিষয় নেই।

এক কথায় সকল বিষয়ের উপর কাজ করতে হয় মফস্বল সাংবাদিকদের। ঈদেও তাদের ছুটি থাকে না। এভাবেই অভ্যস্ত হয়ে গেছেন মফস্বল সংবাদকর্মীরা। যারা কাজ করেন তারা কাজ করতেই ভালোবাসেন। সেটি ঈদের দিন হোক আর পূজার দিনই হোক।

সাংবাদিকদের বিশেষভাবে কোন ছুটির দিন নেই। জরুরী কোন সংবাদের ক্ষেত্রে মাঠে ছুটতে হয় যে কোন সময়। প্রতিযোগিতার যুগে যারাই ছুটিতে যাবে ফিরে দেখবে স্থান অন্য কেউ দখলে নিয়েছে। কাজের ক্ষেত্রে মফস্বল আর স্টাফ সাংবাদিকদের বৈষম্যও রয়েছে।

একজন স্টাফ রিপোর্টার সময় মেপে ডিউটি শেষে বাসায় ফেরেন অন্যদিকে একজন মফস্বল রিপোর্টারের কোন সময় হিসেব নেই। আবার রয়েছে বেতন বৈষম্য।

মিডিয়া হাউজগুলো মফস্বল সাংবাদিকদের যেটুকু সম্মানী দেন সেটিও যথসামান্য, অধিকাংশ হাউজ আবার দেয়ও না। এরপরেও নিজেদের পেশার প্রতি আন্তরিক আর দায়িত্ববান থেকে কাজ করেন। এমন বৈষম্য দূর হওয়া উচিত।

  • 93
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    93
    Shares