লটারির মাধ্যমে কৃষকের নাম বাছায়ের প্রক্রিয়া।ছবি:সংগৃহীত

দিনাজপুরের বিরামপুরে সরকারী ভাবে অভ্যন্তরীণ বোরো সংগ্রহের লক্ষ্যে উপজেলার প্রান্তিক চাষীদের মাঝ থেকে লটারির মাধ্যমে কৃষকের নাম বাছায়ের প্রক্রিয়া শুরু করেছেন উপজেলা খাদ্য শস্য সংগ্রহ ও ধান ক্রয় কমিটি।

২৩ মে বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে কৃষক উদ্বুদ্ধ করণ সভায় লটারীর মাধ্যমে কৃষকের নাম নির্ধারণ করেন দিনাজপুর -৬ আসনের সংসদ এমপি শিবলী সাদিক ।

উপজেলা খাদ্য গুদামের (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা আজমত আলী জানান, বিরামপুর চরকাই খাদ্য গুদামে এবার ২৬ টাকা কেজি দরে ৪৭৫ টন ধান ক্রয়ের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে। উপজেলার একটি পৌরসভা ও ৭টি ইউনিয়নে কৃষি কার্ডধারী ৩৫ হাজার কৃষক রয়েছে।

তিনি জানান, এই বিপুল সংখ্যক কৃষকের নিকট থেকে ধান ক্রয় সম্বভ না হওয়ায় লটারীর মাধ্যমে ৪৭৫ জন প্রান্তিক কৃষক নির্বাচন করা হয়েছে। নির্বাচিত কৃষকগণ এক টন হাওে ধান সরকারী গুদামে বিক্রি করতে পারবেন।

উপজেলা নির্বাহীকর্মকর্তা মো.তৌহিদুর রহমান জানান,ধান সংগ্রহে কোন প্রাকার অনিয়ম যেনো না হয় সেই জন্য লটারির মাধ্যমে কৃষকের নাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান মো.খাইরুল আলম রাজু বলেন, প্রকৃত কৃষক যেন সরাসরি খাদ্যগুদামে ধান দিতে পারেন সেই জন্য এই লটারির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

কৃষক উদ্বুদ্ধ করণ সভায় ইউএনও তৌহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর-৬ আসনের এম,পি শিবলী সাদিক।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল ইলম রাজু, পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার, উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, চরকাই খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজমত আলী, বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও কৃষকবৃন্দ।

আজকের পত্রিকা/মো.মাহাবুর রহমান/বিরামপুর/দিনাজপুর