জীবনের বাস্তবতা অনেক কঠিন। হয়তো কাউকে পাশের মানুষ ভাবছেন। কিন্তু বাস্তবে তিনি হয়তো আপনার স্পর্শের বাইরে। আবার আপন মানুষ ভাবা ব্যক্তিটিও বদলে যেতে পারে। কাজে, কর্মে আহত হতে পারেন আপনি তার দ্বারা।

জীবন চলার পথে আপনি অনেক মানুষের মুখোমুখি হবেন যারা আসলে মানুষের মুখোশের আড়ালে থাকা পশু। শুধু আপনিই পারবেন নিজের অধিকার অন্যের কাছ থেকে আদায় করে নিতে। তারা যদি আপনার সামর্থ অনুযায়ী স্থানে আপনাকে না রাখে, তাহলে আপনাকেই নিজের জায়গা করে নিতে হবে। যাতে আপনি আপনার গন্তব্যে সফল ভাবে পৌঁছাতে পারেন। মনে রাখবেন কেউই আপনাকে সাহায্য করবেন না বরং যেকোনো ভাবেই আপনার পথে বাধা হবে।


অন্যের ভুল থেকে অনেক কিছু শেখার আছে, পরবর্তীতে আপনি একই ভুল না করে দ্রুত নিজের গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবেন। ছবি : সংগৃহীত

আপনি কি কারো কর্মচারি হবেন? নাকি নিজেই নিজের কর্মকর্তা হতে চান। যেখানে আপনার সৃজনশীলতা এবং আবিষ্কার কাজে লাগাতে পারবেন?

একজন কর্মজীবীর ভবিষ্যত প্রজন্মকে নতুন করে সব কিছু শুরু করতে হয়। আর একজন উদ্যোক্তা তার পরবর্তী প্রজন্মের জন্য তার সফলতা রেখে যান। সিদ্ধান্ত আপনার।

যদি আপনি উদ্যোক্তা হতে চান তাহলে নিজেকে সমৃদ্ধ করুন। নিজের মধ্যে একজন সফল উদ্যোক্তার সমস্ত গুন অর্জন করুন। দক্ষ মানুষ অথবা শিক্ষকদের কাছ থেকে শিখুন। কিছু ভালো বই পড়ুন। নিজের ক্ষেত্রে নিজেই বিশেষজ্ঞ হয়ে উঠুন। অনেক বড় চিন্তা করে ছোট আকারে শুরু করুন। এমন কিছু করুন যেটা করতে আপনার ভালো লাগে। নতুন কিছু করার চিন্তা তৈরির জন্য অনেক গবেষণা করুন। এমন কোন দলে যুক্ত হোন যারা উদ্যোক্তা হওয়ার অভিজ্ঞতার কথা বলেন।

অন্যের ভুল থেকে অনেক কিছু শেখার আছে, পরবর্তীতে আপনি একই ভুল না করে দ্রুত নিজের গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবেন। উদ্যোক্তা হয়ে নিজেই নিজের মনিব হোন।

লেখক : জেনিফার হোসেন। কমিউনিকেশনস ম্যানেজার, অস্ট্রেলিয়ান একাডেমি অব বিজনেস লিডারশিপ। এডজাংক্ট ফ্যাকাল্টি, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়।