রাজধানীর অভিজাত মার্কেটগুলোয় ক্রেতা আকর্ষণের জন্য বার্বি ডলের গায়ে সাঁটিয়ে রাখা হয়েছে পোশাকটি।

প্রতি বছর ঈদে ‘কিরণমালা’, ‘রাজকুমারী’, ‘ইচ্ছে নদী’, ‘ছুঁয়ে দিলে মন’, ‘জলকন্যা’- মাস্তানি, দিলওয়ালে, ওবামা, মোদি কোট, মাসাককালি, বাজরাঙ্গি, পাখি, ওয়েস্টার্ন ক্যাপ্রিসহ বাহারি সব নাম ফিরে আসে পোশাকের বাজারে।

ছোটদের পোশাকের এসব নাম নিয়ে তেমন শোরগোল কিংবা বিতর্ক দেখা না গেলেও সাম্প্রতিক বছরগুলোয় ভারতীয় বাংলা সিরিয়ালের কিরণমালা, অপরাধী, শিমুল, বকুল, সাতভাই চম্পাসহ পোশাকের নামগুলো বেশ হইচই দেখা গেছে।মূলত ভারতীয় বিভিন্ন সিরিয়ালের চরিত্রগুলোর নাম অনুযায়ী এ নামকরণ।

এ নিয়ে নানা মাধ্যমে সমালোচনাও হয়েছে বিস্তর।

কিন্তু পোশাকের নাম ‘পরকীয়া’ এটা কি শুনেছেন কখনো। তবে এবার পেছনের সব সমালোচনাকে ছাপিয়ে ঈদ বাজারে এসেছে মেয়েদের পোশাক ‘পরকীয়া’।

রাজধানীর অভিজাত মার্কেটগুলোয় ক্রেতা আকর্ষণের জন্য বার্বি ডলের গায়ে সাঁটিয়ে রাখা হয়েছে এ পোশাকটি। এ নিয়ে ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনা শুরু হয়েছে।

ফেসবুক ব্যবহারকারী Islam Motiul বলেন, ‘আমরা সবাই পচে গেছি। আমাদের চিন্তা ভাবনা থেকে মরা লাশের গন্ধ বেরোচ্ছে।

’Sonjoy Shil বলেন, ‘বেছে থাকলে আর ও কত কি দেখতে হবে। একমাত্র তারাই পারবে। এই dress টা ব্যবহার করতে’।

K.m. Mozahidul Haque নামে এক জন মন্তব্য করেন এই পোশাক পরলে, পরকীয়া করতে বাঁধা দেবার ক্ষমতা স্বামীর থাকবে না। একটা জরিপে দেখা গেছে ভারতের ১০০ জন বিবাহিত নারীর ৪৩ জন পরকীয়ায় লিপ্ত। আমাদের দেশের নারীদের পরকীয়ায় উদ্বুদ্ধ করতে এই পোশাক বাজারে নিয়ে এসেছে। আমি নিশ্চিত এই পোশাক পরলে আপনার বৌ পরকীয়া করতে বাধ্য।

Zahidur Rahaman মন্তব্য করেন এইসব আইডিয়া কেবল পতিতা পল্লীতে জন্মান মানুষের মাথায় আসতে পারে। কাজের ভাল মন্দ বিবেচনার জন্য কোনো ধর্ম, বর্ণ বা গোত্র অনুসরণ করা লাগেনা, মনুষ্য বিবেক থাকা প্রয়োজন। পাশ্চাত্যের অনেক উন্নতির গল্প শুনি আমরা কিন্তু আমরা এটা জানিনা যে ব্যাকরণ ছাড়া জীবন চর্চা করতে গিয়ে তারা জীবনের স্বাদ নষ্ট করে ফেলেছে।

দামের বাজারে অনেক এগিয়ে নতুন নামের এ পোশাকটি। পোশাকটির দাম হাঁকানো হয়েছে ১৪ হাজার ৭০০ টাকা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনাকারীরা বলছেন, বর্তমান সমাজ বাস্তবতায় পোশাকের এমন নামকরণ বিদ্যমান সামাজিক অবক্ষয়েরই প্রতিচ্ছবি।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস