পেঁয়াজ

বর্তমান সময়ে ক্রিকেট একটি জনপ্রিয় খেলা। আর জনপ্রিয় এই খেলায় প্লেয়াররা সেঞ্চুরি করলেই দর্শক উল্লাসে ফেটে পড়েন। আর সেঞ্চুরি করা প্লেয়ার বেট নাড়িয়ে অভিবাদন জানান দর্শককে। কিন্তুু প্রাচীণকাল থেকে বাজার ব্যবস্থা চলে আসছে পৃথিবীতে। বিভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন নামে জিনিসপত্র আদান প্রদানের উৎস মুদ্রাকে আখ্যা দেয়া হত। বর্তমানে আমাদের দেশের এর নাম টাকা।

আর এই মুল্যবান ২ শত টাকায় মিলছে মাত্র এক কেজি পেঁয়াজ। এরফলে অতিক্ষোভে  লোকমুখে ছড়িয়ে পড়ছে পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরির খবর। খেলায় ডাবল সেঞ্চুরি করা প্লেয়ারদের অভিববাদন জানালেও পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরিতে যেমনি করে খুশি হতে পারেননি সকল শ্রেণী ও পেশার মানুষ তেমনি করে খুশি নন সাধারণ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাও।

জানা যায়, কিছুদিন আগেও পেঁয়াজের মুল্য ১ শত টাকা থেকে নেমে ৭০ থেকে ৮০ টাকা হয়। কিন্তুু হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের বাজার গুলোতে ১ সপ্তাহে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ে পেঁয়াজের মুল্য। গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে হঠাৎ করে ঝড়ের মতো বেড়ে পেঁয়াজের কেজি দাঁড়ায় ২ শত থেকে ২ শত ১০ টাকায়।

কথা হয় বিভিন্ন পাইকারী ব্যবসায়ীদের সাথে। তাদের দাবী সারাদেশে পেঁয়াজের দারুন সংকট। তাই বেশী দামে ক্রয় করতে হচ্ছে। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা জানান, ১ শত ৯৮ টাকায় পেঁয়াজ ক্রয় করতে হয়। তাই বাধ্য হয়ে ২
শত টাকার উপরে বিক্রি করতে হচ্ছে।

হবিগঞ্জ জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষনের সহকারী পরিচালক আমিরুল ইসলাম মাসুদ জানান, হবিগঞ্জ জেলার পাইকারী বাজারগুলোতে পেঁয়াজ নাই। এটি একটি জাতীয় সমস্যা। তিনি বলেন সরকার যদি পেঁয়াজের সর্বোচ্চ মুল্য নির্ধারন করেন তবেই বাজার শান্ত হবে। তিনি আরও বলেন সরকার নির্ধারিত দরের উপরে কেউ জিনিস পত্র বিক্রি করলে আমরা অভিযান অব্যাহত রাখব।

-জীবন আহমেদ লিটন