মামুন সভাপতি, মিজান সম্পাদক ও সিলেটের দুর্জয় নির্বাচিত

ঢাকার ভৈরবে নাট্যকর্মী ও অভিনেতা নেত্রীদের সংগঠন পার্থিব শিল্পী সংঘের নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। কিশোরগঞ্জের ভৈরবে পার্থিব অভিনয় শিল্পী সংঘের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলে ভোটগ্রহণ। সংগঠনের ১৭২ জন ভোটারের মধ্যে ১৫১ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নাট্যঅভিনেতা আলহাজ কামাল উদ্দিন চৌধুরীকে নির্বাচন কমিশন করে সম্পন্ন হয় ফলাফল ঘোষনার কাজ।

নির্বাচনে সভাপতি পদে পার্থিব মামুন ও সাধারণ সম্পাদক পদে মো. মিজানুর রহমান পাটোয়ারী আবারও বিনা প্রতিদ্বদ্ধিতায় নির্বাচিত হন ।

কিন্তু, সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে মাসুম খান ৯৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জুম্মান হোসেন মনির পেয়েছেন ৫১ ভোট। সহ-সভাপতি চারটি পদের বিপরীতে ছয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হয়েছেন আব্দুল মজিদ (১১৮), মো. সমুজ মিয়া (১১৭), ভৈরব থানা পুলিশের এসআই জাহাঙ্গীর আলম (১১৬) ও মো. রিপন মিয়া (৯৩) ভোট।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (১) পদে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় মনির চৌধুরীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করে নির্বাচন পরিচালনা পর্ষদ। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (২) পদে নাফিজ ইকবাল ৯৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী খোকন মিয়া পেয়েছেন ৫২ ভোট। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে স্বপন আহমেদ দুর্জয় ১৩২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নাছির পান ১৫ ভোট। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে ফয়সাল খান নির্বাচিত হয়েছেন ১৩৪ ভোটে। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইলিয়াছ আলী পেয়েছেন ১৬ ভোট।

নাট্য সম্পাদক পদে শাহীন সুলতানা ১০৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোঘল সম্রাট পেয়েছেন ৪১ ভোট। তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক পদে ৯৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন মাসুদ আলম সুমন। তাঁর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে শিপন আহম্মেদ পেয়েছেন ৪৯ ভোট। ধর্মবিষয়ক সম্পাদক পদে সারোয়ার তানভীর ৮২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে দেওয়ান নূরে আলম জালালী ৩৭ এবং আনোয়ার হোসেন পান ২৯ ভোট।

সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে জিরো আসাদ ৮১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. রাজন মিয়া পেয়েছেন ৬৯ ভোট।
এ ছাড়াও নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন অর্থসম্পাদক পদে রনি ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক পুড়া কামাল, অনুষ্ঠান বিষয়ক সম্পাদিকা চৈতি, আইন বিষয়ক সম্পাদক কাজল দেবনাথ ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে আলমগীর জালালী।

কার্যকরী সদস্য চারটি পদের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন ছয় প্রার্থী। এরমধ্যে ১২৮ ভোট পেয়ে প্রথম হয়েছেন সিলেটের জনপ্রিয় নাট্য অভিনেতা ও দেশ থিয়েটারের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক কামাল আহমেদ দুর্জয়। ১১০ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন মনিরুজ্জামান খোকন, ৮৭ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন অন্তর সাগর এবং ৮৫ ভোট পেয়ে চতুর্থ হয়েছেন রুহুল আমীন।

এদিকে নির্বাচনকে ঘিরে বেশ কিছুদিন থেকে নাট্য অভিনেতা ও নাট্যকর্মারা ছিল প্রচার মুখি। নির্বাচনের দিন কাউন্সিল স্থল উপজেলা পরিষদ চত্বরে যেন ছিল নাট্য অভিনেতা ও অভিনেত্রীদের এক মিলন মেলা। প্রার্থীদের নানা রঙ আর সাজের পোস্টার, ব্যানার আর ফেস্টুনে ছেয়ে গিয়েছিল উপজেলা চত্বর। নির্বাচন উপভোগ করতে দিনব্যাপী উপজেলা চত্বরে আনাগোনা ছিল সাংবাদিকসহ স্থানীয় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীদের।