বুধবার বস্ত্র ও পাট মন্ত্রীর সঙ্গে ইরাক রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ। ছবি : সংগৃহীত

ইরাকে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এ এম এম ফরহাদ, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

১৯ জুন বুধবার সচিবালয়ে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব আবু বকর সিদ্দিক, বিজেএমসি’র পরিচালক মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মোঃ আব্দুল মজিদসহ মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সাক্ষাৎকালে দু’দেশের বস্ত্র ও পাট শিল্পের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও এর অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা হয়।

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন, ‘কুয়েত-ইরাক যুদ্ধের আগে ইরাক বিজেএমসি’র পাটপণ্যের একটি নিয়মিত বাজার ছিল। ১৯৯৭ সালে গ্রেইন বোর্ড অফ ইরাকের সঙ্গে ৩৮০০০ বেল পাটপণ্য বিক্রয়ের দুটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়’।

তিনি বলেন, ‘ ইরাক-ইরান যুদ্ধের ফলে জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার কারণে ৫.৭২ মিলিয়ন ডলারের পণ্যমূল্য অনাদায়ী রয়ে যায়’। এ বিষয়ে কাজ করতে তিনি রাষ্ট্রদূতের প্রতি আহ্বান জানান।

রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘বাংলাদেশ ও ইরাকের বন্ধুত্বের সম্পর্ক শুধু অর্থনৈতিকই নয় ঐতিহাসিক ও বটে। ইরাক বাংলাদেশ বন্ধুপ্রতীম দেশ। দু’দেশের নিয়মিত বাণিজ্য বৃদ্ধির মাধ্যমে এ সম্পর্ক আরো জোরদার হচ্ছে। সেজন্য ইরাকে বস্ত্র ও পাটখাতে বাংলাদেশের সাথে ব্যবসায় বাণিজ্য সম্প্রসারণ তিনি কাজ করে যাবেন।’

আজকের পত্রিকা/আর.বি/