পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ফেরি ও ল সার্ভিস। চার দিনেও চালু হয়নি ল চলাচল। ফেরি চলছে সীমিত আকারে। তাও যে কোন সময় বন্ধ হয়ে যেতে পাড়ে। পদ্মায় প্রবল স্রোত ও নদী ভাঙ্গনের কারণে এ অচালবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফেরি কর্তপক্ষ।

বিগত এক সপ্তাহ ধরে ফেরি চলাচল ব্যহত হওয়ায় দু’পাড়েই যানবাহনের দীর্ঘ সাড়ি এবং যাত্রীদের দুর্ভোগ লেগেই আছে। এদিকে নদী ভাঙ্গন অব্যহত থাকায় দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় ১ ও ২নং ঘাটের মাঝে প্রায় ৩শ মিটার এলাকা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এতে এ দু’টি ঘাট দিয়ে ফেরি লোড-আনলোড বন্ধ রয়েছে। ফলে রাজধানী ঢাকার সাথে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চালের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। চরম বিপাকে পড়েছে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চালের যানবাহন শ্রমিক ও যাত্রীরা।

বিআইডব্লিউটিসি সুত্রে জানা গেছে, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে চলাচলরত ছোট-বড় মোট ১৬টি ফেরি রয়েছে । হঠাৎ করে পদ্মায় পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে স্রোতও বাড়তে থাকে। এতে গত ২২ সেপ্টেম্বর থেকে স্বাভাবিক ফেরি চলাচল ব্যাহত হয়। নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে দৌতদিয়া ৬টি ফেরি ঘাটের মধ্যে গত শুক্রবার থেকে শনিবারের মধ্যে ১ ও ২ নং ফেরি ঘাটের এ্যপ্রোচ রোড নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

বাকী ৪টি ফেরি ঘাটও ঝুকির মধ্যে রয়েছে। কোন রকম জোড়া তালি দিয়ে এ চারটি ঘাট সচল রাখা হয়েছে। এমতবস্থায় গত শনিবার ১৬টি ফেরির মধ্যে ৩টি ফেরি দিয়ে কোন রকমে ফেরি সার্ভিস চালু রাখা হয়। রবিবার সন্ধ্যায় আরো কয়েকটি ফেরি বাড়িয়ে মোট ১১টি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। বাকী ৫/৬টি ফেরি স্রোতের বিপরীতে চলতে না পাড়ায় ঘাটেই নৌঙর করে রাখা হয়েছে। একদিকে ল চলাচল বন্ধ, অপরদিকে ফেরি চলাচল ব্যহত হওয়া যাত্রী ও যানবাহন শ্রমিকদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এতে ঘাট এলাকাসহ ঢাক-আরিচা মহসড়কের বিভিন্ন স্থানে পণ্যবোঝাই ট্রাকের দীর্ঘ সাড়ি রয়েছে।

এদিকে মানিকগঞ্জ পুলিশ প্রশাসন ফেরি ঘাট এলাকা যানজট মুক্ত রাখতে গাড়িগুলোকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উথলী সংযোগ মোড়ে আটকিয়ে আরিচার দিকে রাস্তার উপর সাড়ি করে রাখছে।

উথলী সংযোগ মোড়ে আটকে থাকা ট্রাক চালক ওমর আলী জানান, সোমবার দিবাগত রাত ১০টায় এখানে আসি। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায়ও পাটুরিয়া ঘাটের দিকে যেতে পারেনি। আর ফেরির নাগাল কখন পাবো তা বলতে পারছিনা।

বিআইডব্লিউটিসি’র ডিপুটি জেনারেল ম্যানেজার জিল্লুর রহমান বলেন, নদী ভাঙ্গন এবং স্রোতের কারণে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটের ফেরি সার্ভিস মহাবিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে। দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় নদীতে এবার যে স্রোত পড়েছে তা কখনও দেখিনি। স্রোতের কারণেই নদী ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। আর এ কারণে ১ ও ২নং ফেরি ঘাট বন্ধ রয়েছে। ৩নং ফেরি ঘাটটিও ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে। এটিও যে কোন সময় বন্ধ হয়ে যাবে। বাকী তিনটি ফেরি ঘাটও ঝুকির মধ্যে রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএর নৌ নিট্টা বিভাগের সহকারী পরিচালক ফরিদুল ইসলাম বলেন, দৌলতদিয়া ল ঘাটের কাছে পানির ঘুর্ণ স্রোতের সৃষ্টি হওয়ায় ল গুলো পন্টুনে ভীরতে পারছেনা। এমতাবস্থায় যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ দুর্ঘটনা এড়াতেই ল চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

শাহজাহান বিশ্বাস/মানিকগঞ্জ