আজ রাঙ্গামাটির লঙ্গদু উপজেলার পাকুয়াখালী গণহত্যা দিবস। ১৯৯৬ সালের ৯ সেপ্টেম্বর তৎকালীন সশস্ত্র শান্তিবাহিনী কর্তৃক নির্মম হত্যার শিকার হন নিরীহ ৩৫ জন বাঙ্গালি কাঠুরিয়া। ২৩ বছরেও হত্যার বিচার না হওয়ায় ক্ষুব্দ পরিবারের সদস্যরা। এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ ও দোষীদের বিচার দাবি করে নানা কর্মসূচি পালন করে আসছে পাহাড়ের বাঙ্গালি সংগঠনগুলো।

৩৫ কাঠুরিয়ার মধ্যে ২৮ জনের লাশ শনাক্ত করা গেলেও বাকী সাত জনের লাশের সন্ধান এখনও পায়নি পরিবারের সদস্যরা। গণহত্যার পর থেকে দিনটিকে পাকুয়াখালী গণহত্যা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে এখানকার বাঙ্গালি সংগঠনগুলোসহ নিহতদের স্বজন ও এলাকাবাসীরা।

আজ সোমবার দুপুরে সদর উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। এতে ব্যানার-পোষ্টার নিয়ে ছাত্র পরিষদের নেতাকর্মীসহ পাকুয়াখালী হত্যাকান্ডের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা অংশ নেন। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পৌর এলাকার শাপলা চত্ত্বরে এসে মানববন্ধন করে।

অবিলম্বে পাকুয়াখালী হত্যাকাণ্ডসহ পার্বত্য চট্টগ্রামে সকল হত্যার তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিচার এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের ক্ষতিপূরণ ও সরকারিভাবে পুনর্বাসনের দাবি জানায় মানব বন্ধনে অংশগ্রহণ কারীরা।