শনিবার রাতে খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে মেহেদী হাসানের করা ১১তম ওভারে রাইলি রুশোর ক্যাচটা কাভারে ঝাঁপিয়ে তালুবন্দি করতে চেয়েছিলেন মাশরাফি। ক্যাচ হাতে জমাতে পারেননি, উল্টো বাঁ হাতের তালুতে অনেকখানি কেটে গেছে ঢাকা প্লাটুন অধিনায়কের। রক্তাক্ত হাতেই তাকে মাঠ থেকে বেরিয়ে আসতে হয়। রাতে হাতে ১৪ সেলাই দেওয়ার সময়ই মাশরাফি নাকি জোরালো কণ্ঠে বলেছেন, পরের ম্যাচটা খেলতে চাই।

চোট পাওয়ার পরও মাশরাফির খেলার বিষয়ে ঢাকার ম্যানেজার আহসানউল্লাহ হাসান রোববার বললেন, সে খেলতে ভীষণ ইচ্ছুক। আমরা বুঝতে পারছি না কী করব। দৃঢ় মনোবলে সে বলছে, খেলবে। জানেনই তো, মাশরাফি একজন লড়াকু মানুষ। এখন বিষয়টি তার ওপর ছেড়ে দিয়েছি।

বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, যেহেতু সেলাই পড়েছে, সাধারণত সাত দিন সময় নিতেই হয়। অনেক সময় খেলা যায়, গুরুত্বপূর্ণ খেলা থাকলে আমরা ব্যবস্থা নিই। তবে সেরে উঠতে সাত দিনের বেশি লাগে। অনেক সময় কেউ কেউ ঝুঁকি নেয়।