খ্রিষ্টান ধর্ম যাজক স্যামুয়েল শ্রপশায়ার।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৭০ বছর বয়সী বিখ্যাত খ্রিস্টান ধর্ম যাজক স্যামুয়েল শ্রপশায়ার। মুসলমানদের আতিথেয়তা ও পবিত্র কুরআনের স্পর্শে এসে ইসলামের আলোকিত জীবনে ফিরেছেন তিনি। ইসলাম গ্রহণকারী স্যামুয়েল শ্রপশায়ারকে আহলান, সাহলান।

বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন ধর্মের বিখ্যাত ব্যক্তিত্বরা যুগে যুগে ইসলামের আলোয় নিজেদের আলোকিত করেছেন। এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত ধর্ম যাজক স্যামুয়েল শ্রপশায়ার পবিত্র কুরআনুল কারিম গবেষণা করতে গিয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছেন।

ইসলাম গ্রহণ করার পর সাবেক এ ধর্ম যাজক জানান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন সময় মুসলমানদের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব উপস্থাপন করতে দেখেছি। দেখেছি কুরআনুল কারিম নিয়ে সমালোচনা করতে। আর তা থেকে মুসলমান ও কোরআন সম্পর্কে জানতে প্রচণ্ড আগ্রহ অনুভব করতাম।

সে চিন্তা-চেতনা থেকে পবিত্র কোরআন সম্পর্কে জানার জন্য ২০১১ সালে প্রথম সৌদি আরব আসি। সৌদি আরবের জেদ্দায় কোরআন নিয়ে গবেষণার সময় মুসলমানদের কাছ থেকে পেয়েছি অনুপম আতিথেয়তা। মার্কিন গণমাধ্যমে প্রচারিত যা মুসলমানদের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাবের কিছুই পাইনি। আর তখনই ইসলামের প্রতি আমার এক অন্যরকম ভালোলাগা তৈরি হয়ে যায়।

বর্তমানে সৌদি আরবে অবস্থান করা সাবেক মার্কিন যাজক স্যামুয়েল শ্রপশায়ার গতকাল মঙ্গলবার (২১ মে) গণমাধ্যমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য জানান।

প্রথমবার যখন সৌদিতে আসি তখন আমি মুসলিম কিনা অমুসলিম সেটা বিবেচনা না করে কেবল মানুষ হিসেবে আমার সঙ্গে তারা উত্তম আচরণ করেছিলো। মুসলমানরা এক আল্লাহর উপাসনা করে। নীতি নৈতিকতায় তারা অনন্য।

বর্তমানে শান্তি ও সংহতির জন্য মুসলমানদের কণ্ঠস্বর নামে একটি অলাভজনক সংগঠন পরিচালনায় কাজ করছেন স্যামুয়েল শ্রপশায়ার।

আজকের পত্রিকা/জেবি