অরুনিমা ইকো পার্কের মৃত পাখিদের একত্র করা হচ্ছে। ছবি-সংগৃহীত

নড়াইলের অরুনিমা ইকোপার্কের প্রায় ছয় হাজার দেশীয় ও অতিথি পাখি একটানা দুইদিনের বৃষ্টিতে মারা গেছে। বৃষ্টি ও শৈত্য প্রবাহে ২৫ ফেব্রুয়ারি সোমবার থেকে পাখিদের প্রাণহানির শুরু হয়। পার্কের সবচেয়ে বেশি পাখি মারা যায় ২৬ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার রাতের ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে।

অরুনিমা ইকোপার্কটি মধুমতি নদীর তীরসংলগ্ন কালিয়া উপজেলার নড়াগাতি থানার পানিপাড়া গ্রামে ‘কৃষি পর্যটনকেন্দ্রে অবস্থিত। পার্কটিতে হাজার হাজার পাখির বাস।  কিন্তু এক রাতে ঝড়ে পার্কের বেশিরভাগ পাখিই মারা যায়।

অরুনিমা ইকোপার্কের মালিক ইরফান আহম্মেদ বলেন, ‘সারাদেশের মতো নড়াইলেও ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে ঝড়ো হাওয়া ও ভারী বৃষ্টিপাত। ২৫ তারিখ ও ২৬ তারিখ রাতে ভারী বৃষ্টির সঙ্গে শিলাবৃষ্টি হয়। এই শিলাবৃষ্টিতে পার্কে অবস্থানরত হাজার হাজার অতিথি পাখি মারা যায়। দেশীয় ও অতিথি মিলে মৃত পাখির সংখ্যা প্রায় ছয় হাজার। পার্কে কর্মরত শ্রমিক দিয়ে মৃত পাখিগুলোকে একত্রিত করা হচ্ছে। পরবর্তীতে মাটি খুঁড়ে মৃত পাখিগুলোকে পুঁতে রাখা হবে’।

ইকোপার্কের চেয়ারম্যান খবির উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘প্রায় ৬০ একর এলাকাজুড়ে গড়ে উঠেছে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক হাজার পাখির বাসস্থান। এখানে বক, হাঁসপাখি, পানকৌড়ি, শালিক, টিয়া, দোয়েল, ময়না, মাছরাঙা, ঘুঘু, শ্যামা, কোকিল, টুনটুনি, চড়ুইসহ দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রজাতির পাখির রাজত্ব। এখানে প্রতিদিন হাজার হাজার পাখির প্রজনন ঘটে। ডিম থেকে ফুটে বাচ্চা। বর্তমানে দেশের একমাত্র এই কৃষি পর্যটনকেন্দ্রটি পরিণত হয়েছে পাখির অভয়ারণ্যে। কিন্তু এক রাতের বৃষ্টিতে পার্কটি প্রায় পাখিশূন্য হয়ে গেল। এই ক্ষতি পোষাতে সময় লাগবে অনেকদিন’।

আজকের পত্রিকা/মির/এমএইচএস