আমতলী একে সরকারি হাই স্কুল মিলনায়তনে ভোট গ্রহন কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম।

প্রশাসনের কোনো কর্মকর্তা ৩১ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বেআইনি কোনো কাজের সাথে জড়িত হলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, যার বিরুদ্ধে বেআইনি কাজের অভিযোগ পাওয়া যাবে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কমিশনার আরও বলেন, নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু, সুন্দর ও নিরপেক্ষ নির্বাচন চায়। এতে প্রশাসনের সকলের সহযোগিতা করতে হবে।

২১ মার্চ বৃহস্পতিবার আমতলী একে সরকারি হাই স্কুল মিলনায়তনে ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম।

তিনি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতি বিশেষ নজর রাখার নির্দেশ দিয়ে প্রশাসনকে আরো বলেছেন, কোনো ভোটার ভোট কেন্দ্রে যেতে কোনো বাধার সম্মুখিন হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিবেন। ভোটারা তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে আসবে। কিছু দিন পূর্বে একটি নির্বাচন হয়েছে ওই নির্বাচন নিয়ে কথা উঠেছে। নির্বাচন কমিশন আর কোনো কথা শুনতে চায় না।

তিনি আরো বলেছেন, কোনো সংসদ সদস্য তার নিজ এলাকায় শুধু তার ভোট দিতে পারবেন। কিন্তু কোনো প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বরগুনা জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ, বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সরোয়ার হোসেন, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) কমলেশ মজুমদার, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দিলীপ কুমার হাওলাদার, আমতলী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন মিলন ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. তারিকুল ইসলাম প্রমুখ।

মিজানুর রহমান, বরগুনা/জেবি