মাহমুদ উল্লাহ্‌
বিজনেস করেসপন্ডেন্ট

বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক সমিতির সঙ্গে বৈঠকে শিল্পমন্ত্রী। ছবি: শিল্পমন্ত্রনালয়

বিএসটিআইয়ের মাধ্যমে নিম্নমানের ভোজ্য লবণ বাজারজাতকারীদের চিহ্নিত করে কালো তালিকাভুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। সেই সাথে এ ধরনের লবণ উৎপাদনকারী কারখানাকে বন্ধ করে দেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক সমিতির এক প্রতিনিধিদলের সাথে বৈঠককালে শিল্পমন্ত্রী এ কথা বলেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ে আজ এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে সংগঠনের পূবালী সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজের স্বত্বাধিকারী পরিতোষ কান্তি সাহা, শাহে মদিনা সল্ট ইন্ডস্ট্রিজের স্বত্বাধিকারী দুলাল রায়, মোল্লা সল্ট (ট্রিপল রিফাইন্ড) ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের প্রতিনিধি এম.এ মান্নান, এসিআই সল্ট লিমিটেডের কামরুল হাসান, কনফিডেন্স সল্ট লিমিটেডের মো. শামসুদ্দিন, ইফাত মাল্টি প্রোডাক্টস লিমিটেডের মো. জামাল রাজ্জাক ও গরিবে নেওয়াজ সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজের প্রতিনিধি মো. কামাল দেওয়ান উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে লবণ শিল্পের সমস্যা ও করণীয় সম্পর্কে আলোচনা হয়। এ সময় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা বলেন, ইন্ডাস্ট্রিয়াল সল্টের নামে কোনো কোনো আমদানিকারক সোডিয়াম ক্লোরাইড আমদানির ফলে সরকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তারা এ বিষয়ে কঠোর হতে শিল্পমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

বৈঠকে শিল্পমন্ত্রী বলেন, জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় পরিমিত পরিমাণে আয়োডিনযুক্ত ভোজ্য লবণ নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব। এ লক্ষ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিএসটিআই কাজ করে যাচ্ছে। আয়োডিনবিহীন কিংবা জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর ভোজ্য লবণ বাজারজাতকারীদের সাথে সরকার কোনো আপস করবে না। পাশাপাশি যেসব লবণ মিল ভোজ্য লবণে পরিমিত পরিমাণে আয়োডিন মিশ্রণ করবে, সরকার তাদের স্বার্থ সুরক্ষা করবে। জাতীয় স্বার্থে লবণ চাষিদেরও সুরক্ষা দেয়া হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এছাড়াও পরে জাতীয় দৈনিক পত্রিকা ও গণমাধ্যম কর্মীদের সংগঠন বাংলাদেশ জার্নালিস্ট ফাউন্ডেশন ফর কনজুমারস্ অ্যান্ড ইনভেক্টরস্ (বিজেএফসিআই) এর এক প্রতিনিধিদল শিল্পমন্ত্রীর সাথে বৈঠক করেন।

শিল্প মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে তারা সরকারের ইশতেহার বাস্তবায়নে গণমাধ্যমের সহায়তার বিষয়ে আলোচনা করেন। এ সময় প্রতিনিধিদলের পক্ষ থেকে এসএমইখাতের উন্নয়ন, এসএমই বিষয়ক সাংবাদিকতার প্রশিক্ষণ, ভোক্তা অধিকার বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টি, অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা জোরদারের আগ্রহ প্রকাশ করা হয়।

শিল্পমন্ত্রী সংগঠনের নেতাদের একটি সুনির্দিষ্ট লিখিত প্রস্তাব পেশের পরামর্শ দেন। এর ভিত্তিতে আগামী দিনে দ্বিপাক্ষিক সহায়তার ক্ষেত্র চিহ্নিত করে গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে শিল্প মন্ত্রণালয় অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বৈঠকে শিল্প মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আবদুল হালিম, বিজেএফসিআইয়ের চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ, দৈনিক সংবাদের বার্তা সম্পাদক কাজী রফিক, বাসসের আতাউর রহমান, ডেইলি সানের নির্বাহী সম্পাদক সিহাবুর রহমান, ডেইলি ফাইন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের এডিশনাল নিউজ এডিটর আনিসুর রহমান, এস.এ টিভির সালাহউদ্দিন বাবলু, ডেইলি ইনডিপেন্ডেন্টের দীপক আচার্য, ডেইলি এশিয়ান এজের পিআর বিশ্বাস, চ্যানেল আইয়ের অঞ্জন রহমান, ডেইলি সানের জেড এ.এম. খায়রুজ্জামান, নয়া দিগন্তের আশরাফ আলী, বাংলাদেশ এক্সপ্রেসের চমন আফরোজ রোজী ও ফ্রিল্যান্সার দীপ্তি ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।