নিখোঁজের ৪০ দিনেও উদ্ধার হয়নি আশরাফুল

নিখোঁজের ৪০ দিন অতিবাহিত হলেও, খুঁজে পাওয়া যায়নি মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার কাফাটিয়া গ্রামের দশম শ্রেণীর ছাত্র আশরাফুল ইসলামকে। পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশ ও র্যাবের কাছে আলাদা অভিযোগ করা হয়েছে।

মা-বাবাসহ স্বজনরা দ্বারে দ্বারে ঘুরছে আশরাফুলকে ফিরে পেতে। সহপাঠি, শিক্ষক এবং এলাকাবাসী করেছে মানবন্ধন। দীর্ঘদিনেও আশরাফুলকে উদ্ধার করতে না পারায়, পুলিশের উদাসীনতাকে দায়ী করছে তারা। আর আশরাফুলকে খুঁজে বের করতে প্রযুক্তির ওপর নির্ভর করার কারণে সময় বেশী লাগছে বলে জানায় পুলিশ।

আশরাফুল ইসলাম মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার ধল্লা-কাফাটিয়া গ্রামের সৌদী প্রবাসী মোহাম্মদ আলীর একমাত্র ছেলে। সে স্থানীয় কাফাটয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র।

আশরাফুলের মা ফাতেমা বেগম জানান, গত ৬ আগষ্ট বিকেলে প্রাইভেট পড়ার জন্য বাড়ি থেকে মোটর সাইকেল নিয়ে বের হয় আশরাফুল। এরপর সে আর বাড়ি ফিরে আসেনি।

আশরাফুলের পিতা মোহাম্মদ আলী জানান, তিনি ২০০১ সাল থেকে সৌদী আরবে কর্মরত আছেন। ছেলে নিখোঁজের পর সৌদি আরবে তার ইমু নাম্বারে ফোন করে ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছে বলে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করা হয়। পরে তিনি দেশে ফিরে বিষয়টি পুলিশ ও র‌্যাবকে অভিযোগ করেন।

এদিকে নিখোঁজ আশরাফুলকে উদ্ধারের দাবীতে এলাকায় মানববন্ধন করেছে তার সহপাঠি, শিক্ষক, এলাকাবাসী ও স্বজনরা। তারা আশরাফুলকে দ্রুত খুঁজে বের করে তাদের মাঝে ফিরিয়ে দেয়ার দাবী করেন।

পুলিশ তৎপর হলে আশরাফুলকে দ্রুত খুঁজে বের করা সম্ভব হবে বলে দাবী করেন এলাকাবাসী

মানিকগঞ্জ সদর থানা ওসি রকিবুজ্জামান বলেন, আর পুলিশ বলছে, আশরাফুলকে খুঁজে বের করতে তারা প্রযুক্তির ব্যবহার করে সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আশরাফুল নিখোজের একমাস পর গত ৪ সেপ্টেম্বর তার সহপাঠী সোহান নিখোঁজ হলে একদিন পর তাকে বরিশাল জেলায় অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়। এসব ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে আতংক বিরাজ করছে।

শাহজাহান বিশ্বাস/মানিকগঞ্জ