নাসিরনগর থানায় উৎসকু জনতার ভিড়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগরে দিনে দুপুরে মানুষের মাথা কেটে ব্যাগে ভরে থানা গিয়ে হাজির হয় লবু দাস নামে এক মানষিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তি।

২৫ জুন মঙ্গলবার দুপুর ২ ঘটিকার সময় স্থানীয় গৌর মন্দিরের নাট মন্দিরের ভিতর এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর উপজেলার ঘোষ পাড়া গ্রামের মৃত মতিলাল ঘোষের ভবঘুরে ছেলে লিটন ঘোষ (৪৮) নাসিরনগর ঘোষ পাড়া তার বোন মিনা রানী ঘোষের স্বামী নেপাল ঘোষের বাড়ীতে থেকে মানুষের বিভিন্ন কাজ কর্ম করে জীবিকা নির্বাহ করত।

লিটনের বোন মিনা রানী ঘোষ জানায়, ঘটনার আগে লিটন তার বোনের বাড়ী থেকে খাওয়া দাওয়া শেষে নাট মন্দিরেরভিতর ঘুমিয়ে পড়লে নাসিরনগর পশ্চিম পাড়ার পরমানন্দ দাসের ছেলে মানষিক ভারসাম্যহীন লবু দাস (৫০) ঘুমন্ত লিটনকে ধারালো দা দিয়ে মাথা কেটে ব্যাগে ভরে দা ও মাথা নিয়ে থানায় গিয়ে হাজির হয়। এ সময় পুলিশ তাকে হাতে নাতে ধরে তার হাত থেকে ধারালো দা ও লিটনের মাথা উদ্ধার করে।

লিটনের বোন মিনা রানী ঘোষ আরো জানায় তারা ৫ ভাই ২ বোনের মাঝে লিটন ভাইদের মাঝে সবার ছোট। সে নাসিরনগর থেকে মানুষের কাজকর্ম করে জীবিকা নির্বাহ করত ।

জানা গেছে লবু দাস মানষিক ভারসাম্যহীন। সে আনুমানিক ৭ বৎসর পূর্বে তার আপন চাচা সাবেক মেম্বার রবি দাসকে খুন করে জেল হাজতে যায়। কিন্তু পরবর্তীতে কি ভাবে জেল থেকে ছাড়া পেয়েছে তা স্পষ্টভাবে বলতে পারে না।

থানা পুলিশ লিটনের মরদেহ ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করেছে। লাশের ময়নাতদন্ত ও পরবর্তীতে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।

আব্দুল হান্নান/নাসিরনগর