নরেন্দ্র মোদি কর্নাটকের চিত্রদুর্গে ভোটের প্রচারে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে। ছবি : সংগৃহীত

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিমানে ‘রহস্য জনক ট্রাঙ্ক’ নিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে দেশটির রাজনীতিতে নতুন করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে ইতোমধ্যে দেশটির নির্বাচন কমিশনকে এ ঘটনার তদন্তের দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৩ এপ্রিল শনিবার এই ‘রহস্য জনক ট্রাঙ্ক’ এর খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। নরেন্দ্র মোদি কর্নাটকের চিত্রদুর্গে ভোটের প্রচারে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে।

কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মোদি সেখানে নামার আগেই তার নিরাপত্তারক্ষীরা ট্রাঙ্কটি তড়িঘড়ি বিমান থেকে নামিয়ে একটি গোপন জায়গায় নিয়ে যায়। কংগ্রেস দলের মুখপাত্র আনন্দ শর্মা এ ব্যাপারে বিস্তারিত তদন্তের দাবি করেছেন।

আনন্দ শর্মা বলেন, আমরা দেখেছি প্রধানমন্ত্রীর হেলিকপ্টার পাহারায় থাকা আরও তিনটি কপ্টার ছিল। অবতরণের পর বিমান থেকে একটি কালো রংয়ের ট্রাঙ্ক বের করা হয়। অল্প সময়ের মধ্যে ট্রাঙ্কটি একটি গাড়িতে তুলে দেওয়া হয়।। তবে ওই গাড়িটি প্রধানমন্ত্রীর কনভয়ের অংশই ছিল না।

আনন্দ শর্মা আরও বলেন, ওই ট্রাঙ্কে কী ছিল? যদি টাকাই না থেকে থাকে তাহলে তো তদন্ত করা যেতেই পারে।

এছাড়াও তিনি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার চুক্তি নিয়ে মোদির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এবং প্রধানমন্ত্রীর (মোদি) সঙ্গে ফ্রান্সের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির আলোচনা প্রকাশ্যে আনার দাবি জানান।

তবে কংগ্রেসের অভিযোগ খারিজ করেছে বিজেপি। দলের এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘এ সবই মিথ্যা কথা। কংগ্রেস দুর্নীতি সমার্থক। তারা আগে তাদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত দুর্নীতির জবাব দিক।’

আজকের পত্রিকা/বিএফকে