আইএস

জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) তাদের নতুন প্রধানের নাম ঘোষণা করেছে। সশস্ত্র সংগঠনটির উত্তরাধিকারী হিসেবে আবু ইব্রাহিম আল-হাশেমি আল-কুরাইশির নাম ঘোষণা করেন দলটির মুখপাত্র আবু হামজা আল কুরেইশি।

বৃহস্পতিবার আইএসের গণমাধ্যম শাখার বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ খবর জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের হাতে আইএস প্রধান আবু বকর আল বাগদাদির নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করে নতুন এ প্রধানের নাম ঘোষণা করল জঙ্গিগোষ্ঠীটি।

এর আগে গত রোববার বাগদাদিকে হত্যার দাবি করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, সিরিয়ার ইদলিবে আমেরিকার স্পেশাল ফোর্সের এক অভিযানে আইএস প্রধান নিহত হন। পরে এক সংবাদ সম্মেলনেও ট্রাম্প বাগদাদিকে হত্যার দাবি জানায়।

তবে আমেরিকার সে দাবির সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠে। আইএস প্রধানকে হত্যার খবরকে রীতিমত উপহাস করে আসছে রাশিয়া। দেশটির পক্ষ থেকে বলা হয়, এক ব্যক্তিকে কতবার হত্যা করা যায়!

রাশিয়ার এ প্রশ্নের জবাব হিসেবেই আমেরিকার প্রতিরক্ষা বিভাগ থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। ওই ভিডিওতে দেখানো হয়েছে আমেরিকান সেনার কমান্ডো দলটি আইএস প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদির ডেরাকে কীভাবে ঘিরে ফেলছে।

এ ভিডিও ১০ সেকেন্ডের মতো দীর্ঘ এবং এতে শুধু এটুকুই দেখা যাচ্ছে, কমান্ডোদের দল বাগদাদির অবস্থানের দিকে কীভাবে এগিয়ে চলেছে। ভিডিওটি দেখে বোঝা যাচ্ছে, হয়তো আকাশে ওড়া কোনও ড্রোনের মাধ্যমেই ভিডিওটি ধারণ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বলা হয়ে থাকে আল-কায়দা প্রধান ওসামা বিন লাদেনের পরে আবু বকর আল-বাগদাদিই বিশ্বের সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসবাদী। ইরাক এবং সিরিয়ায় তথাকথিত ‘খলিফা’ হিসেবেই নিজেকে জাহির করত বাগদাদি এবং বিশ্বজুড়ে পবিত্র যুদ্ধের নামে রক্তপাতই ছিল এই সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী প্রধানের কাজ।

সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আইএস প্রধান বাগদাদির মৃত্যুর সময় বয়স হয়েছিল ৪৮ বছর। ধর্মের নামে হাজার হাজার মানুষদের হত্যার মাধ্যমেই সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আইএস নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করে।

চলতি বছরের এপ্রিলে শ্রীলঙ্কায় রেস্টুরেন্টে বোমা হামলা চালিয়ে আইএসের সদস্যরা ২৫০ জনকে হত্যার দাবি করে এক ভিডিও বার্তা প্রকাশ করেছিলেন আইএসের এই প্রধান।

সূত্রঃ বিবিসি