গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। ছবি : সংগৃহীত

কৃষক ধান উৎপাদন করে মূল্যের পরিবর্তে এখন শাস্তি পাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। ২২ মে বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন মিলনায়তনে গণফোরাম আয়োজিত ‘কৃষক জনতা এক হও, সরকার হটাও-দেশ বাঁচাও’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

কৃষক ধানের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না উল্লেখ করে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেন, এ অবস্থার জন্য সরকার দায়ী। ধান উৎপাদনের জন্য কৃষককে এমন শাস্তি পেতে হবে এটা অকল্পনীয়। ধান চাষ করে মূল্য না পেয়ে কৃষক তার ধান মাঠেই পুড়িয়ে ফেলছে। এই অবস্থা শুধু কৃষিক্ষেত্রে নয়, দেশের সব ক্ষেত্রে।

অবিলম্বে ইউনিয়ন পর্যায়ে ক্রয় কেন্দ্র খুলে কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনাসহ আরও চার দাবি তুলে ধরে গণফোরাম। সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন বলেন, সরকারে কোনো কৃষিজীবী নেই। তাই কৃষি বিষয়ে তারা যেসব কথা বলেন তা নিজেরাই মানেন না এবং করেন না। বর্তমান সরকারকে ‘অনির্বাচিত’ দাবি করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এই শীর্ষ নেতা বলেন, এ জন্যই এ সরকারকে বহন করার মূল্য সমগ্র দেশবাসীকে দিতে হচ্ছে।

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে একটি গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে বলেও মন্তব্য করে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘সংবিধান লঙ্ঘন করে দুইবার নির্বাচন করেছে সরকার। এখন তারা বলছে তৃতীয়বার নির্বাচিত হয়েছে। তার মানে তারা যে আগামী পাঁচবছর ক্ষমতায় থাকছে তাও বলে দিচ্ছে। এটা দেশবাসীর প্রতি চরম অবজ্ঞা।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া, নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, অধ্যাপক আবু সাঈদ, মেসবাহ উদ্দিন, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল আওয়াল, প্রেসিডিয়াম মেম্বার জগলুল হায়দার আফ্রিক প্রমুখ। গণফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমিন আহমেদ আনসারীর পরিচালনায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন অধ্যাপক আবু সাঈদ।

আজকের পত্রিকা/রাজনীতি/গণফোরাম/আ.স্ব