তীব্র এক লজ্জাবোধ প্রায় প্রতিদিন আঘাত করছে আমাদের। লজ্জিত হচ্ছে বৈষম্যহীন সমাজ বির্নিমাণের প্রত্যাশা। প্রতীকি ছবি

রাজনীতির কুকথার চর্চা আপাতত বন্ধ। সেটা স্বত্বির খবর। তবে আমাদের রাজনীতিবিদদের মুখ থেকে সুবচন ঝরে পড়ছে তাও নয়। রাজনীতি এখন আর রাজনীতির জায়গায় নেই এটাও ঠিক। তাই তাদের কাছ থেকে উন্নত গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংস্কৃতি আশা করা উচিৎ হবে না।

তবে আপাতত আমরা উচিৎ-অনুচিৎ জ্ঞানকে অনেক দূরে সরিয়ে রেখেছি। সেটা রাজনীতি, সমাজ, রাষ্ট্র সব জায়গা থেকে। সংবাদপ্রত্রের পাতা এবং টেলিভিশনের পর্দায় এখন যা খবর হয়ে বের হচ্ছে প্রায় প্রতিদিন, তা একটু বিবেক বুদ্ধি সম্পন্ন মানুষকে বিব্রত করছে। লজ্জিত করছে। শিশু নির্যাতন, ধর্ষণ এগুলোই এখন খবর!

‘যে দেশে গণমাধ্যমের নিত্য দিনের সংবাদ হয়ে আসছে ধর্ষণ, সেখানে একটা দিন সেরকম কিছু না দেখলে খানিকটা স্বস্তি পাওয়ার কথা। কিন্তু মনে যে সারক্ষণ অস্বস্তির কাঁটা খোঁচা দেয়; এ কোন সমাজের বাসিন্দা হয়ে গেলাম আমরা যেখানে ধর্ষণ হয়ে দাঁড়াছে শিরোনাম। ’

স্কুল ছাত্রী, মাদ্রাসা ছাত্রী, গৃহবধূ, নার্স, পোশাক শ্রমিক কেউ বাদ পড়ছেন না এই পাশবিকতার নির্মমতা থেকে! আর এই অপকর্মের সাথে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে জড়িয়ে যাচ্ছে শিক্ষক, রাজনীতিবিদ, বাস চালক, হেলপার থেকে প্রভাবশালীদের নাম! যা আমাদের ঘুণে ধরা সমাজে অবক্ষয়ের তীব্রতা বাড়িয়ে দিচ্ছে।

এই অবক্ষয়ের স্রোতে সবাই গা ভাসিয়ে দিচ্ছেন তা হয়তো নয়। তবে এটা রোধে সামাজিক যে জোরালো প্রতিবাদ গড়ে তোলার কথা ছিল সেটা করা যাচ্ছে না। বা হচ্ছে না। শুধু আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী কঠোর হলেই সব ঠিক হয়ে যাবে তাও না। এই অবক্ষয় রোধে শুভ বুব্ধি সম্পন্ন মানুষকে জেগে উঠতে হবে। হাতে হাত ধরে রাস্তায় নামতে হবে। সেই জায়গায় আমরা কেন জানি সামনের দিকে পা বাড়াতে চাইছি না। অথবা পারছি না।

এই না পারার গ্লানিবোধ অনেককে পোড়াছে। কিন্তু সেই দগ্ধ মনের যন্ত্রণা নিয়ে তারা দিন পার করছেন। অস্ফুট স্বরে হয়তো বলছেন;‘ এ কোন সমাজের বাসিন্দা হয়ে গেলাম আমরা! যেখানে মাদ্রাসা অধ্যক্ষের কাছে নিরাপদ নয় তার ছাত্রী, যেখানে স্কুল শিক্ষকের কাছেও অনিরাপদ কিশোরীরা! ঘরে-বাইরে, চলন্ত বাসে, কোথায় তারা নিরাপদ!

আসলে গোটা সমাজে এক ধরনের নিরাপত্তাহীনতা বিরাজ করছে। দায়টা সবাই সরকারকে দিয়ে পার পেতে চান। কিন্তু সরকারের পাশে সমাজের বিবেক বলে যারা দাবি করেন, তারা কতটা এসে দাঁড়াছেন? একটা মানব বন্ধন, কয়েকটা মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করলেই সমাজের এই অন্ধকার দূর হয়ে যাবে সেটা আশা করা বাড়াবাড়ি।

আমাদের এই সমাজের আরেকটা খারাপ উপসর্গ; আমরা কার্পেটের নিচে আগুন লুকাতে চাই। সবকিছু লুকিয়ে রেখে সমাধান খুঁজতে চেষ্টা করি। এই সব ধর্ষণের প্রবণতা কেন বাড়ছে, তার নানা রকম যুক্তি দাঁড় করানোর চেষ্টায় ব্যস্ত হয়ে পড়ছি যে যার পক্ষ থেকে।

কেউ অতি নারীবাদী হয়ে যাচ্ছেন। আবার কেউ দুষছেন নারীদের। বলছেন তার পোশাক, চাল-চলন এই সব আদিম উগ্র বাসনাকে জাগিয়ে দিচ্ছে। যে কারণে ধর্ষণের মত ঘটনা বাড়ছে! হাস্যকর। নারী যে দেশে বোরকা পরে, হিজাব পরেও নিজের সম্ভ্রম রক্ষা করতে পারছেন না, সেখানে ঐ সব সেকেলে যুক্তি দাঁড় করানোর চেষ্টা যারা করেন তারা আসলে কামান্ধ। বিবেক বন্ধক রাখা ব্যক্তি।

দিন কয়েক আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক সাংবাদিক বন্ধু তাঁর নিজের টাইম লাইনে লাল অক্ষরে ব্রেকিং নিউজের মত করে লিখেছেন; আজ একটাও ধর্ষণের ঘটনা ঘটেনি! বুঝতে অসুবিধা হয়নি বিবেক কতটা পোড়ালে তিনি এরকম একটা স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

যে দেশে গণমাধ্যমের নিত্য দিনের সংবাদ হয়ে আসছে ধর্ষণ, সেখানে একটা দিন সেরকম কিছু না দেখলে খানিকটা স্বস্তি পাওয়ার কথা। কিন্তু মনে যে সারক্ষণ অস্বস্তির কাঁটা খোঁচা দেয়; এ কোন সমাজের বাসিন্দা হয়ে গেলাম আমরা যেখানে ধর্ষণ হয়ে দাঁড়াছে শিরোনাম।

ধর্ষিতাকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে থানায় আরো একবার মুখে ধর্ষণ করা হয়। যেখানে একজন নার্স, যিনি হাজার রোগীকে সেবা করছেন, তিনি বাড়ি ফিরতে পারছেন না নিরাপদে! ধর্ষণের শিকার হতে হচ্ছে তাঁকে। সত্যিই ধর্ষণ শিরোনামের এখন পরিচিত এক শব্দে রুপ নিয়েছে।

কিন্তু আজকের এই পরিচিত সমাজ কোনভাবেই কাঙ্খিত হতে পারে না নিজেদের সভ্য জাতি হিসেবে পরিচয় দেয়ার জন্য। ত্রিশ লক্ষ শহীদ আর তিন লক্ষ মা -বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন বাংলাদেশে প্রায় প্রতিদিন কোন না কোন নারীকে আবার নিজের সম্ভ্রম বিসর্জন দিতে হবে, তেমন বাংলাদেশ তো আমরা চাইনি। অর্ধ শতাব্দীর দিকে এগিয়ে চলা বাংলাদেশের এই সামাজিক অবক্ষয় রুখবে কারা? তাহলে কী আমাদের সভ্যতা পশ্চাদমুখি হয়ে পড়েছে? আমরা কী ফিরে যাচ্ছি সেই আদিম যুগে? তাতো হতে পারে না।

তীব্র এক লজ্জাবোধ প্রায় প্রতিদিন আঘাত করছে আমাদের। লজ্জিত হচ্ছে বৈষম্যহীন সমাজ বির্নিমাণের প্রত্যাশা। প্রতিদিন লাঞ্ছিত হচ্ছে আপনার আমার স্ত্রী-কন্যা, বোন। কিন্তু আমি, আমরা এখনও নির্বাক। একবার আমাদের সরব হয়ে ওঠা দরকার। চিৎকার করে ওঠা দরকার। বলা দরকার, নারী নির্যাতন, ধর্ষণ এর এই উপত্যকা আমার দেশ হতে পারে না। আমি , আপনি, আমরা এই সমাজের বাসিন্দা হতে পারি না।

লেখক : অঘোর মন্ডল, সাংবাদিক

SOURCEজাগো নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম