দৌলতখান উপজেলায় যত্রতত্র বিভিন্ন দোকানে অবাধে চলছে ফায়ার লাইসেন্স বিহীন এলপি গ্যাস সিলিন্ডারের খুচরা ব্যবসা। যেকোনো ধরনের বিপর্যয় রক্ষার নেই কোন অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র।

ওষুধের দোকান, মুদি দোকান, কাপড়ের দোকান, কীটনাশকের দোকান, খাবারের দোকান, এমনকি পানের দোকানেও প্রকাশ্যে এলপি গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি হচ্ছে। মাঠ পর্যায়ে এই সব দোকানিদের ফায়ার লাইসেন্স তো দূরের কথা, অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রও তাদের নেই। উপজেলার দৌলতখান বাজারসহ ৯-টি ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটি বাজারেই বর্তমানে গ্যাস সিলিন্ডার কম-বেশি বিক্রি করা হচ্ছে। ৮টি সিলিন্ডার মজুদ করতে হলেও অধিকতর নিরাপত্তার জন্য অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা বাধ্যতামূলক হলেও তা মানছেন না খুচরা গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসায়ীরা।

লাইসেন্স আছে এমন গ্যাস ও দাহ্য পদার্থ ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ হাসিলের জন্য ট্রাকে করে বিপজ্জনক গ্যাস সিলিন্ডার সাজিয়ে ভাঙাচুরা পাকা-আধাপাকা সড়ক দিয়ে দ্রুতগতিতে চালিয়ে দোকানে দোকানে সরবারহ করছে।
মাঝে মধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চোখে পড়লেও জনস্বার্থে তা সন্তোষজনক নয় বলে সচেতন মহল মনে করেন।
স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই ধরনের ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ জোরালো করতে পারলে অনেক বড় ধরনের জানমালের ক্ষতি থেকে জনসাধারণ রেহাই পাবে বলে তারা মনে করেন ।

দৌলতখান পৌর বাজারসহ বিভিন্ন এলাকার দোকানে বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তাদের মধ্যে আইনগত বাধ্যবাধকতা বিষয়ে ধারণা নেই। সংশ্লিষ্টদের তদারকির অভাবে ঝুঁকিপূর্ণ ব্যবসা জেনেও তারা সরকার অনুমোদিত লাইসেন্স ও অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ছাড়াই ব্যবসা করছে।

বিভিন্ন কোম্পানির ডিলারদের বিক্রয়ের প্ররোচিত হয়ে গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসায়ীরা আইন অনুসরণ থেকে দূরে থাকছে। এসব দোকানগুলোতে বিভিন্ন ব্যান্ডের ১৫ থেকে ২০ পিস পর্যন্ত গ্যাস সিলিন্ডার দোকানে মজুদ করে ব্যবসা করছে।

এসব ব্যবসায়ীদের মধ্যে বেশ কিছু ব্যবসায়ী লাইসেন্সের জন্য আবেদন করে হাতে পাওয়ার অপেক্ষায় না থেকে সিলিন্ডার ব্যবসা শুরু করেছে।

দোকানের ভিতরে বেশি পরিমাণ মজুদ রেখে বিক্রয়ের নয়া কৌশল হিসেবে দোকানের সামনে ফুটপথের ধারে দুই-চারটি সিলিন্ডার রেখে বিক্রিয় করছে। রাস্তা দিয়ে চলাচলরত জনসাধারণেরও মারাত্মক ঝুঁকি পোহাতে হয়। কেননা, এই ধরনের বিস্ফোরক দ্রব্য যেকোনো সময় বিস্ফোরণের আশঙ্কা রয়েছে।

এ বিষয়ে দৌলতখান উপজেলার ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ভারপ্রাপ্ত স্টেশন অফিসার মোঃ মোস্তফা কামাল বলেন, বিস্ম্ফোরক লাইসেন্স ছাড়া কেউ দোকানে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করতে পারবেন না।

  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share