অনিশ্চয়তায় এখনো পাকিস্তান সফর। দীর্ঘ এই সফরকে ছোট করে এনে কেবল সূচিতে থাকা কেবল টি-টোয়েন্টি সিরিজের পক্ষে বিসিবি। অপরপক্ষে পিসিবির চায় টেস্ট সিরিজ। এদিকে টেস্ট দুটি আবার চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ,পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে পরে থাকা বাংলাদেশ তাই এই সিরিজ না খেললে সম্মুখীন হতে পারে আরেক ক্ষতির। তাইতো আগামীকাল আইসিসি সভাপতি শশাঙ্ক মনোহরের সঙ্গে দেখা করতে দুবাইয়ের উদ্দেশে রওনা দিবেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

পাকিস্তান সফরের দুটি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। ফলে থাকছে বাড়তি গুরুত্ব। অনিশ্চয়তায় থাকা সফর বাতিল হলে যে ক্ষতির শঙ্কা রয়েছে তা বিসিবির অজানা শুরু থেকেই। গতকাল (১২ জানুয়ারি) বোর্ড সভা শেষেও একই কথা জানালেন নাজমুল হাসান পাপন, ‘এটা টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ, টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে যদি আমরা না যাই তাহলে কি হবে সেটা কিন্তু আমরা এখনো জানি না।’

তিনি আরো বলেন, ‘এই ব্যাপারটা কিন্তু আমরা এখনো যদি বলেন আন্দাজ করতে পারি কি কি হতে পারে কিন্তু আমরা নির্দিষ্ট করে বলতে পারি না এতে আসলে কি হবে। সুতরাং এটাও জানা দরকার, এটা তো আইসিসির টুর্নামেন্টের অংশ। এটা তো আমাদের দেশেও হতে পারে, তো তখন কি হবে, এটা একটা ইস্যু।’

বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর নিয়ে জলঘোলা অল্পদিনের নয়, তবুও এতদিনে বিষয়টি পরিষ্কার হতে না পারার কারণ জানতে চাইলে পাপন যোগ করেন, ‘শোনেন এটা আইসিসি কি বলবে আপনিই বলেন? এখানে কেউ আর বলবে না, আইসিসি বোর্ড মিটিংয়ে না গেলে কেউ এই সিদ্ধান্ত দিবে না। এটা এত সহজ বিষয় নয়।’

‘এখানে অনেক বিষয় জড়িত। এমন তো নয় যে, আমি আইসিসির লিগ্যাল অফিসারকে ফোন করলাম সে একটা উত্তর দিয়ে দিল। এরকম কিছু লিখা নেই তো। এটা এমন কিছু যা আলোচনা করতে হবে , বুঝতে হবে তারপর সিদ্ধান্ত। সুতরাং এটা এত সহজ নয়।’

তবে আগামীকাল আইসিসি সভাপতির সাথে দেখা করতে যাওয়া নাজমুল হাসান পাপন বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবেন, জানার চেষ্টা করবেন বলে জানান। ‘আমি আগামীকাল দুবাই যাচ্ছি, আইসিসিতে। আমি দেখতে চাই আসলে কি ঘটছে। কালকে যাচ্ছি পরশু দিন ইনশাআল্লাহ ব্যাক করবো। আসলে আইসিসি সভাপতি শশাঙ্ক মনোহর আসছেন, তিনি আগেই আমাকে বলে রেখেছেন সময় হলে আমিও যেন একদিন তার সাথে দেখা করে আসি।’