দুষ্কৃতিকারীরা দক্ষিণ কোরিয়ার ১০টি শহরের অন্তত ৩০টি হোটেলে ৪২ টি রুমে এই মিনি ক্যামেরাগুলো স্থাপন করেছে। ছবি : সংগৃহীত

দক্ষিণ কোরিয়ার হোটেলে প্রায় ১৬০০ মানুষের ব্যক্তিগত মুহূর্ত গোপনে অবৈধভাবে ধারণ করে তা অনলাইন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে মোটা অংকের বিনিময়ে বিক্রি করা হচ্ছে। দক্ষিণ কোরিয়ার পুলিশের এক প্রতিবেদনে এই অবৈধ গোপন ক্যামেরার  অভিযোগ উঠে এসেছে।

কোরিয়ার পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, দুষ্কৃতিকারীরা দক্ষিণ কোরিয়ার ১০টি শহরের অন্তত ৩০টি হোটেলে ৪২ টি রুমে এই মিনি ক্যামেরাগুলো স্থাপন করেছে।

এই ঘটনায় দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং দুই জনকে স্থানীয় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

ছোট আকারের বা মিনি ক্যামেরাগুলো হোটেল কক্ষের টেলিভিশন, চুল শুকানোর হেয়ার ড্রায়ারের হাতল কিংবা প্লাগের সকেটে অভিনব কায়দায় বসানো হতো যেন খালি চোখে তা বোঝা না যায়।

পুলিশ জানিয়েছে, এই অভিযোগের ও অপরাধের সাথে হোটেলগুলো জড়িত আছে নিঃসন্দেহে।

এদিকে, ভিডিওগুলো যেই ওয়েবসাইটে লাইভ দেখানো হত সেখানে ৪০০০ এর বেশি সদস্য রয়েছে। যার মধ্যে প্রতি মাসে গড়ে ৯৭ জন সদস্য ৪৪.৯৫ ডলার অর্থ প্রদান করে ভিডিওগুলো পুনরায় দেখার অনুমতি পেত।

পুলিশ বলেছে, “অতীতে এমন আরও অনেক বার অবৈধ ক্যামেরায় ভিডিও ধারণ হয়েছে এবং মামলা ও হয়েছে। কিন্তু এই প্রথম তা পুলিশের কাছে ধরা পড়েছে কারণ ভিডিওগুলি ইন্টারনেটে লাইভ সম্প্রচার করা হয়েছিল”।

আজকের পত্রিকা/বিএফকে/এআরকে