তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, আঙ্কারার নিজস্ব পরমাণু অস্ত্র থাকবে না এটা মেনে নেয়া যায় না। বুধবার সিভাস শহরে ক্ষমতাসীন একে পার্টির এক সমাবেশে তিনি কথা বলেন।

ন্যাটো মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের হুমকি-ধমকি উপেক্ষা করে রাশিয়ার সঙ্গে যখন তুরস্ক প্রতিরক্ষা সম্পর্ক বাড়াচ্ছে, তখন তিনি এমন মন্তব্য করলেন।

তবে তুরস্ক পরমাণু অস্ত্র বানাতে চায় কিনা, তা পরিষ্কার করেননি তিনি। এরদোগান বলেন, কিছু দেশের নিজেদের পারমাণবিক ওয়ারহেডযুক্ত ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। কিন্তু আমাদেরকে সেটা অর্জনে তারা বাধা দেয়। আমি এটা মানতে পারি না।

তার মতে, বিশ্বে এমন কোনো উন্নত দেশ নেই, যারা এই অস্ত্রের মালিক না।

১৯৮০ সালে পারমাণবিক অস্ত্রবিস্তার রোধ চুক্তিতে সই করেছে তুরস্ক। অবশ্য ১৯৯৬ সালে বিস্তৃত পারমাণবিক পরীক্ষা নিষিদ্ধ চুক্তিতে সই করে দেশটি। এতে যে কোনো উদ্দেশ্যে পরমাণবিক বিস্ফোরণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

ইসরায়েল আমাদের খুব কাছাকাছি দেশ। অনেকটা প্রতিবেশির মতো। তারা এসব (পরমাণু অস্ত্র) দিয়ে অন্যদের ভয় দেখায়। তাদের নিয়ে কারো মাথা ব্যথা নেই।

বিদেশি বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, ইসরাইল বড় ধরনের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডারের মালিক। পারমাণবিক ইস্যুতে অবৈধ রাষ্ট্রটি এক ধরনের অস্পষ্টতা বজায় রেখে চলছে। এই ধরনের সক্ষমতার কথা স্বীকার-অস্বীকার কোনোটাই করছে না দখলদার ইসরাইল।