ছবি সংগৃহীত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের ১২টিতেই বিদ্যুৎ নেই তিন দিন ধরে। বিদ্যুৎ বিহীন অতিষ্ট হয়ে পড়েছে জনজীবন। হাফিয়ে উঠছে শিশু ও বৃদ্ধরা। নষ্ট হতে শুরু করেছে ফ্রিজে রক্ষিত মানুষের নিত্যপণ্য খাদ্য সামগ্রী। অতিরিক্ত গরমে দেখা দিয়েছে বিভিন্ন রোগ জীবানুর।

গত ১৩ মে সোমবার সন্ধ্যায় নাসিরনগর উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে চলে এক প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড়। লন্ডভন্ড করে দেয় ঘর-বাড়ী, গাছ-পালা ও পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি। হয় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি।

এ বিষয়ে ফান্দাউক ইউপি চেয়ারম্যান এডঃ কামরুজ্জামান মামুন, গোয়ালনগর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আজহারুল হক, গোকর্ণ ইউপি চেয়ারম্যান ছোয়াব আহম্মদ হৃতুল, ভলাকুট ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ রুবেল মিয়া ও বুড়িশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান এটিএম মোজাম্মেল হক সরকার মুকুল জানায়, ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ চলছে।

বিদ্যুৎ না থাকার কারণে জন্মনিবন্ধনের কাজ করা যাচ্ছে না। মানুষের ফ্রিজে রক্ষিত বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী নষ্ঠ হতে চলেছে । অতিরিক্ত গরমের কারণে মানুষের বিভিন্ন রোগ জীবানু দেখা দিয়েছে।

নাসিরনগর উপজেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (এজিএম) হিমেল কুমার সাহার সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলে জানা গেছে ভয়াবহ প্রলয়ংকরী ঝড়ে উপজেলা ১৩টি ইউনিয়নের ৩৬টি খুঁটি ভেঙ্গে গেছে। তিনি বলেন, আমাদের লোকবল কম থাকায় শুধু নাসিরনগর ইউনিয়নে ১ম বিদ্যুৎ সার্ভিস শুরু করি।

এখন পর্যন্ত ১৬টি খুঁটি ঠিক করা হয়েছে। বাকীগুলো দ্রুত ঠিক করার কাজ চলছে। আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিদ্যুৎ চেষ্ঠা করছি।

আজকের পত্রিকা/মোঃ আব্দুল হান্নান/নাসিরনগর/ব্রাহ্মণবাড়িয়া/আরকে/শায়েল