আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ছবি : সংগৃহীত

২০১৭ সালের আগে নিয়োগ পাওয়া সুপ্রিম কোর্টের ডেপুটি ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেলদের (ডিএজি ও এএজি) পদত্যাগের আহ্বান জানানো হয়েছে।

২৬ জুন বুধবার দুপুরে রাজধানীর বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে লিগ্যাল এইডের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ আহ্বান জানান।

এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেলদের নতুন করে নিয়োগ দেওয়া হোক বা পুরাতনরা বহাল থাকুক, তাদের নিয়োগ প্রক্রিয়া নতুন করে দেওয়া হবে। তাই ২০১৭ সালের আগে যারা নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছেন, তাদের পদত্যাগ করতে বলা হয়েছে।

মন্ত্রী আরো বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেলকে তাদের (ডিএজি এবং এএজি) পদত্যাগের বিষয়টি চিঠির মাধ্যমে জানিয়েছি। তিনি নিশ্চয়ই পদক্ষেপ নিচ্ছেন। তবে তা আমি জানি না। এখন পর্যন্ত কোনো পদত্যাগপত্রও আমার কাছে পৌঁছায়নি।

চিঠি দিয়ে ডিএজি এবং এএজিদের পদত্যাগের বিষয়টি জানানো হলেও পুনরায় তাদের পদত্যাগের আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এখন আবারো তাদের (ডিএজি ও এএজিদের) পদত্যাগ করতে বলছি, বিষয়টি আপনাদের (সংবাদকর্মী) মাধ্যমে তাদের সবার কাছে পৌঁছে যাবে।

ডিআইজি মিজানকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিককে দুদকে তলব প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, বিষয়টি আমি অবগত নই। তবে আমি বলবো, দুদক একটি স্বাধীন সংস্থা। আর এ বিষয়ে কোনো প্রশ্ন যদি করতে হয়, তাহলে আপনাদের দুদকের কাছে প্রশ্ন করাই শ্রেয়।

আরেক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আপনারা জানেন, সাবজুটিস মেটারে (বিচারাধীন বিষয়ে) কখনো কোনো কথা বলি না। আপনারা সিম্পলি দেখেন, সরকার আইনসম্মত ও সংবিধানের ভেতরে থেকে বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তেমনি রাষ্ট্রের বিচার বিভাগ, নির্বাহী বিভাগ ও আইন সভা সেই বাস্তবতাকে নিয়ে কাজ করে।

প্রসঙ্গত, রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনার জন্য সুপ্রিম কোর্টের আপিল ও হাইকোর্ট বিভাগে ডেপুটি ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল নিয়োগ দেয় সরকার। রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে আইন মন্ত্রণালয় এই নিয়োগ কার্যকর করে থাকে। বর্তমান সরকারের টানা ৩ বারের শাসনামলে সুপ্রিম কোর্টের অনেক ডেপুটি ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল দীর্ঘদিন ধরে কর্মরত আছেন। ফলে নতুনদের নিয়োগ দিতে ২০১৭ সালের আগে নিয়োগ পাওয়া ডিএজি এবং এএজি পদে কর্মরতদের পদত্যাগ করতে বলা হয়। বর্তমানে অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ে ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেলের সংখ্যা ৬৭ জন এবং সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেলের সংখ্যা ১০৭ জন।

আজকের পত্রিকা/কেএফ