বন্দুকযুদ্ধ।

কক্সবাজারের টেকনাফে দুইজন, জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে একজন ও ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে একজন বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন।  শুক্রবার ভোরে বন্দুকযুদ্ধের এসব ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে ইয়াবা কারবারি, সন্ত্রাসী ও ডাকাত রয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

বৃহস্পতিবার ৩টার দিকে জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে পুলিশের সঙ্গে এবং শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) ভোরে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং লম্বাবিল এলাকায় নাফ নদের তীরে বিজিবির সঙ্গে এ পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধ’র ঘটনা ঘটে।

পাঁচবিবিতে নিহত ব্যক্তির নাম আমিনুল ইসলাম ক্যাসেট (৪২)। তিনি পাঁচবিবির পিয়ারা গ্রামের মৃত সাহাবুল ইসলামের ছেলে। পুলিশের দাবি, তিনি অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়সহ আট মামলার আসামি ছিলেন। এ ঘটনায় পুলিশের দুই সদস্য আহত হয়েছেন এবং তাঁদেরকে পাঁচবিবির মহিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে।

পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) মুনছুর রহমান জানান-ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি বিদেশি পিস্তলসহ সাত রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে বলেও দাবি করেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

অন্যদিকে, কক্সবাজারের টেকনাফে নিহতরা হলেন উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এ ব্লকের আবুল হাসিম (২৫) ও একই ক্যাম্পের সি ব্লকের নূর কামাল (১৯)। আব্দুল হাসিম ক্যাম্পের সুলতান আহম্মেদের ছেলে এবং নূর কামাল আবু সিদ্দিকের ছেলে। বিজিবির দাবি, তারা দুজনই ইয়াবা পাচারকারী ছিলেন।

টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়সাল হাসান জানান-ঘটনাস্থল থেকে ৫০ হাজার পিস ইয়াবা, একটি দেশি অস্ত্র ও দুটি কিরিচ উদ্ধার করা হয় এবং আহত বিজিবির তিন সদস্যকে ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে দাবি করেন বিজিবির ওই কর্মকর্তা। লাশ দুটি কক্সবাজার মর্গে রয়েছে এবং এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

অপরদিকে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আব্দুল মোতালেব (৪২) নামের পাঁচ ডাকাতি মামলার এক আসামি নিহত হয়েছেন। শুক্রবার ভোর রাতে গফরগাঁও-রসুলপুর আঞ্চলিক সড়কে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মোতালেব গফরগাঁও উপজেলার রসুলপুরের ছয়ানী গ্রামের কেতু শেখ ওরফে আব্দুল গফুরের ছেলে।

ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ কামাল আকন্দ জানান, রাতে গফরগাঁও-রসুলপুর আঞ্চলিক সড়কে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে ডাকাতদল- গোপনসূত্রে এমন খবর পেয়ে ডিবি পুলিশের দুটি দল অভিযান চালায় সেখানে। ডাকাতদল পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায়।

সহযোগী ডাকাতদল পালিয়ে গেলেও গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মোতালেব নামে একজনকে আটক করে পুলিশ। আহত মোতালেবকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মোতালেবের বিরুদ্ধে পাঁচটি ডাকাতির মামলা রয়েছে।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় আকরাম হোসেন নামে পুলিশের এক এসআই আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, ১০ রাউন্ড গুলি ও বেশকিছু কার্তুজের খোঁসা উদ্ধার করা হয়েছে।

-এস