এ ম্যাচে হারলেই বাদ পড়বে ঢাকা। তবে জিতলেই আবার ফাইনাল নিশ্চিত হবে না চট্টগ্রামের। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই ধীরে ধীরে পেছাতে থাকে ঢাকা প্লাটুন।
ওপেনার তামিম ইকবাল (১০ বলে ৩), তিনে নামা এনামুল হক বিজয় (৪ বলে ০) কিংবা চার নম্বরে আসা লুইস রিস (৩ বলে ০) কেউই পারেননি উইকেটে থিতু হতে। প্রথম পাওয়ার প্লে’তে তাদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩ উইকেটে ২৮ রান।

অষ্টম উইকেট জুটিতে প্রতিরোধ গড়েন থিসারা পেরেরা ও শাদাব খান। দুজন মিলে ৩০ বলে যোগ করেন ৪৪ রান। মাত্র ১৩ বলে ৩ চার ও ১ ছয়ের মারে ২৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন থিসারা। তখন বাধ্য হয়েই কাটা হাত নিয়ে ব্যাট করতে নামতে হয় মাশরাফি বিন মর্তুজাকে।

তখনও ইনিংসের বাকি ছিলো ১৪টি বল। যার মধ্যে দুটি মোকাবেলা করেন মাশরাফি। সে দুই বলে কোনো রান হয়নি। তবে অন্য ১২ বলে আরও ৪০ রান যোগ করে ঢাকা। শেষ দুই ওভারে ঝড় তুলে নিজের ফিফটি পূরণ করেন শাদাব। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ৫ চার ও ৩ ছয়ের মারে ৪১ বলে ৬৪ রান করে। শাদাব খানের তার ফিফটিতে ভর করে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে আগে ব্যাট করে ঢাকা দাঁড় করায় ১৪৪ রানের লড়াকু সংগ্রহ।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দলকে ভালো শুরু এনে দেন ক্রিস গেইল এবং জিয়াউর রহমান। মেহেদী হাসানের বলে জিয়া বিদায় নিলেও,ভালো ব্যাটিং করে যান কায়েস এবং গেইল। শাদাবের বলে আউট হওয়ার আগে তিনি করেন ২২ বলে ২৯ রান। এই রিপোর্ট লেখা অবধি চট্টগ্রামের সংগ্রহ ১৩.২ ওভার শেষে ২ উইকেটের বিনিময়ে ৯৩ রান।