এম. এ. আর. শায়েল
সিনিয়র সাব এডিটর

জয়পুরহাট সরকারি মহিলা কলেজ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি
শ্রেণিকক্ষ সংকট এবং শিক্ষক-কর্মচারীর স্বল্পতার কারণে ব্যাহত হচ্ছে জয়পুরহাটের একমাত্র সরকারি মহিলা কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম। জেলায় ফলের দিক দিয়ে পরপর তিনবার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে নির্বাচিত হলেও উন্নয়নে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি কলেজ কর্তৃপক্ষ।
১৯৭২ সালে পহেলা জুলাই প্রতিষ্ঠিত জয়পুরহাটের একমাত্র সরকারি মহিলা কলেজ। শিক্ষার মান ভালো হওয়ায় পরপর তিনবার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে নির্বাচিত হয় এটি।
দীর্ঘদিন ধরে কলেজটিতে উন্নয়নের ছোঁয়া না লাগায় ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। রয়েছে শিক্ষার্থীদের তুলনায় শ্রেণিকক্ষের সংকট। সেই সাথে একমাত্র আবাসিক হোস্টেলটির আসন সংখ্যা সীমিত থাকায় ব্যক্তি মালিকানায় গড়ে তোলা ছাত্রীনিবাসে থাকতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। একমাত্র বাসটিও বছরের পর বছর বিকল হয়ে পড়ে আছে। এছাড়া ক্যান্টিনের অস্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে প্রায়ই বিভিন্ন অসুখে ভুগছেন শিক্ষার্থীরা।
কলেজটি জাতীয়করণের পর শিক্ষক না বাড়ানোয় রাষ্ট্র বিজ্ঞান ছাড়া অন্য বিষয়ে খোলা হয়নি অর্নাস কোর্স। এতে পছন্দ মত বিষয় না পেয়ে ভর্তি সংখ্যা কমছে। এছাড়া স্বতন্ত্র কোনো পরীক্ষা গ্রহণের হলরুম না থাকায় ব্যাহত হচ্ছে একাডেমিক কার্যক্রম।
প্রয়োজনীয় লোকবল নিয়োগসহ এসব সমস্যা নিরসনে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা চলছে বলে জানায় কলেজ কর্তৃপক্ষ।
কলেজটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সামছুল হুদা জানান, সমস্যাগুলোর কথা বিভিন্ন সময় মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। আমরা আশা করি এর একটা আশু সমাধান হবে।
১৯৮৪ সালে জাতীয়করণ হওয়া সরকারি মহিলা কলেজে বর্তমানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা আড়াই হাজার।