বছর তিনেক আগেই ফুটবল বিশ্বের এক বিধ্বংসী ত্রয়ী নিয়ে মাঠে নামত বার্সেলোনা। মেসি-সুয়ারেজ-নেইমারের সেই ত্রয়ীকে ফুটবল ভক্তরা ডাকত এমএসএন নামে। ২২২ মিলিয়নের রেকর্ড ট্রান্সফার ফি দিয়ে নেইমার যখন পিএসজিতে যোগ দেন সেই সাথে ভেঙে যায়,সেই বিধ্বংসী আক্রমান ভাগ। পরের দুই মৌসুমে বার্সা যখন সেই হারানো ত্রয়ী কে খুঁজে ফেরে,তার ৩ মৌসুম পর এবার তাঁরা দলে ভিরায় অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের অ্যান্টোয়ান গ্রিযমানকে।

তবে গিযমান আসার পর এই তিনজনের একইদিনে জ্বলে ওঠার দিন দেখতে বার্সেলোনা সমর্থকদের অপেক্ষা করতে হয়েছে প্রায় তিন মাস। এইবারে অবশেষে দেখা মিলেছে বার্সা ত্রয়ীর। তিনজনই গোল করেছেন, তাতে ইপুরুয়া মিউনিসিলিপল স্টেডিয়ামে বার্সেলোনাও জয় পেয়েছে ৩-০ গোলে। আপাতত রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে এক ম্যাচ বেশি খেলে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষেও উঠে গেছে এর্নেস্তো ভালভার্দের দল। ১৩ মিনিটে এইবারের ডিফেন্সিভ হাইলাইনের পেছনে জায়গাটা দেখেছিলেন লেংলে। এরপর নিজের রক্ষণ থেকে লং বল পাঠিয়েছিলেন গ্রিযমানের উদ্দেশ্যে। তিনি বল রিসিভ করে প্রায় ২৫ গজ দৌড়ে বক্সের ভেতর ডান পাশ থেকে শট মারেন, বারপোস্টে লেগে সেই বল ঢুকে যায় এইবারের জালে। লা লিগায় গ্রিযমান পেয়ে যান চতুর্থ গোল আর লেংলে বার্সার হয়ে পান প্রথম অ্যাসিস্ট।

দ্বিতীয়ার্ধের ১৩ মিনিটেও দ্বিতীয় গোলটি পেয়ে যায় তারা।বাম পায়ের কোনাকুনি নিচু শটে গোল করে লা লিগায় নিজের দ্বিতীয় গোলও পেয়ে যান আর্জেন্টাইন। সুয়ারেজর অপেক্ষা আর আক্ষেপ ঘোঁচে ৬৬ মিনিটে। মিডফিল্ড থেকে দারুণ এক থ্রু পাস দেন গ্রিযমান। মেসির সামনে ছিলেন শুধু গোলরক্ষক। নিজে শট না নিয়ে স্কয়ার পাসে তিনি খুঁজে নেন সুয়ারেজকে।

আজকের পত্রিকা/এসএমএস