জৈন্তাপুরে সিলিন্ডার বহনকারী সিএনজি ও টমটম আটক

সিলেট-তামাবিল মহাসড়কে বোমা নিয়ে মহাসড়কে চলছে সিএনজি চালিত টমটম।পুলিশ অভিযানে মহাসড়কে চলাচলের অযোগ্য এসব অনিবন্ধিত ১টি সিএনজি চালিত টমটম গাড়ী আটক করেছে থানা পুলিশ। এঘটনায় চালককে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সিলেট-তামাবিল মহাসড়কে সিএনজি সিলিন্ডার ব্যবহার করে দীর্ঘ দিন হতে টমটম গাড়ী চলাচল করেছে। মহাসড়কে এসকল গাড়ী চলাচলের কোন ধরনের ফিটনেস, নিবন্ধন নেই এমনকি চালকের নেই লাইসেন্সে। গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার মানে এসকল গাড়ী যেন এক একটি বোমা ব্যবহার করছে। নিম্নমানের সিলিন্ডার, টেকসই গাড়ী না হওয়ার কারনে এগুলো যেন বোমা বহন করছে।

যে কোন মুহুত্বে এসকল সিএনজি সিলিন্ডার বিষ্ফোরিত হলে যাত্রীসহ চালকের জীবন ধ্বংস হবে। এক শ্রেনীর টোকনবাজ চক্র সকল গাড়ীতে টোকন ব্যবহার করে পুলিশের নামে মাসিক ১হাজার থেকে ১৫শত টাকা চাঁদা আদায় করে যাচ্ছে। অপরিক্ষীত অনিবন্ধিত সিলিন্ডার বহেন করে যাত্রীদের আনা নেওয়া মানে জীবন ঝুকির মধ্যে রয়েছে।

১২ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় সিলেট তামাবিল মহাসড়কের দরবস্ত এলাকায় জৈন্তাপুর মডেল থানার এস.আই প্রদীপ রায়ের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে সিএনজি চালিত টমটম গাড়ী ও লাইসেন্স বিহীন চালককে আটক করা হয়। আটককৃত চালক উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের মুটগুঞ্জা গ্রামের জিয়াউল হকের ছেলে জহির উদ্দিন উরফে জহিরুল (৩৮)।

সিলেট-তামাবিল মহাসড়কের জৈন্তাপুর অংশে কোন প্রকার অবৈধ টমটম, সিএনজি টমটম চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারী করে ভাল ফলাফল পেয়েছে পুলিশ। ইতোমধ্যে সচেতন মহল মনে করেন টোকন নিয়ে যাত্রীদের জীবন ঝুকিতে ফেলে যাহারা গাড়ী চলাচল করাচ্ছে তাহাদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার আহবান জানান। টোকন চালিত অনিবন্ধিত সিএনজি চালিত অটো রিক্সা চলাচলের কারনে উপজেলার বিভিন্ন সীমান্তে অপরাধের মাত্রা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপরদিকে অপরাধী ও চোরাকারবারিরা মাদক বহন, চোরাচালান, নাশকতা মূলক কাজে নিবন্ধনহীন বা নাম্বার বিহীন সিএনজি চালিত অটো রিক্সা ব্যবহার করে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অপরাধ কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

এদিকে অপরাধ সংগটিত হলে এসব সিএনজি চালিত অটো রিক্সার পরিচয় পাওয়া যাচ্ছে না। কোন কোন সময় আইন শৃংঙ্খলা বাহিনী অপরাধ সংঘটিত করলে তাদেরকে খোঁজে বের করতে পারছে না। সচেতন মহল আরও জানান, উপজেলার অপরাধ নির্মূল করতে সবার আগে টোকন চালিত বোমা বহনকারী সিএনজি টমটম, অনিবন্ধিত সিএনজি চালিত অটোরিক্সা ও তাদের নিয়ন্ত্রণকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসার জোর দাবী জানান। সেই সাথে বোমা বহনকারী সিএনজি আটক করায় পুলিশ প্রশাসনকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক জানান, একটি টোকন মানুষের জীবনের কি নিরাপত্তা দিবে। মুলত অপরিক্ষীত সিলিন্ডার বহন মানে বোমা বহন করা। থানা পুলিশ এসব বোমা বহনকারী প্রতিটি টমটম আটক করবে, তাতে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। আমরা সিলেট-তামাবিল মহাসড়কে অভিযান চালিয়ে টোকনধারী বোমা বহনকারী ১টি টমটম ও ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন চালক আটক করেছি। ২০১৮ সনের সড়ক পরিবহন আইনের ১১০(১) ধারায় চালককে আটক দেখিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

নাজমুল ইসলাম/জৈন্তাপুর