গোপালগঞ্জে কুপিয়ে যুবককে হত্যা।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার শশাবাড়িয়া গ্রামে পানিতে চুবিয়ে, পিটিয়ে ও কুপিয়ে নিশংসভাবে জসিম শেখ (৩০) নামের এক যুবককে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জসিম শেখ ওই গ্রামের আজিজ শেখের ছেলে। সে ওই গ্রামে কয়েক বছর আগে ঘটে যাওয়া একটি হত্যা মামলার সাক্ষী। গত ঈদের দিন নামাজ শেষেও এই জসিম শেখসহ ৪জনকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে প্রতিপক্ষের লোকজন।এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার আসামীরা সম্প্রতি জেল থেকে বেরিয়ে আজ শুক্রবার এ হত্যাকাণ্ড ঘটায়।

এলাকাবাসী জানান, ৩/৪ বছর আগে ওই গ্রামে লাক্কু মোল্লা নামে এক ব্যক্তি প্রতিপক্ষের হাতে খুন হন।সেই থেকে ওই গ্রামে দু’টি বিবাদমান গ্রুপের মধ্যে দলাদলি চলে আসছিল। বখতিয়ার শেখ ও ইমাম শেখ এ দল দু’টির নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন। গত ঈদের দিন নামাজ শেষে বিবাদমান এই দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

হাসপাতালে স্বজনদের আহাজারি।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রতিপক্ষ বখতিয়ার শেখের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ একদল লোক ইমাম শেখের সমর্থক জসিম শেখের বাড়িতে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এসময় জসিম শেখকে বাড়ি থেকে জোর করে ধরে নিয়ে তাকে কুপিয়ে, পিটিয়ে ও পানিতে চুবিয়ে হত্যা করে।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুল ইসলাম জানান, এলাকার পরিস্থিতি এখন পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। এ ঘটনায় দুই জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মোজাম্মেল হোসেন মুন্না/গোপালগঞ্জ