বাবা-মা কোনো কাজে ব্যস্ত থাকলে তাদের সন্তানদের হাতে মোবাইল ফোন দিয়ে থাকেন। ছবি: সংগৃহীত

আপনি যদি ঘুমাতে যাওয়ার আগে সন্তানদের হাতে মোবাইল ফোন দিয়ে থাকেন, তাহলে আপনার জন্য দুঃসংবাদ আছে। অনেক বাবা-মাই কোনো কাজে ব্যস্ত থাকলে তাদের সন্তানদের হাতে মোবাইল ফোন দিয়ে থাকেন। ইতিমধ্যে এমন অনেক গবেষণা হয়েছে, যেখানে বলে হয়েছে- ঘুমাতে যাওয়ার আগে মোবাইল ফোন ব্যবহার না করার কথা। কিন্তু তারপরও অনেকেই ঘুমানোর আগে স্যোশাল মিডিয়ায় ঘুরে আসে। ফলে ঘুম ভালো হয় না, উঠার থেকে পর মেজাজ খিটখিটে হয়ে থাকে। একইভাবে আপনার সন্তানদের ক্ষেত্রেও একই ঘটনাই ঘটছে।

সাম্প্রতিক এক গবেষণা দেখা গেছে, ঘুমানোর আগ মুহূর্তে মোবাইল ফোন ব্যবহার করা, আপনার সন্তানদের ঘুমের ব্যঘাত আনার একমাত্র কারণ। যেহেতু সন্তানের মস্তিষ্ক এখনও বিকাশের পর্যায়ে রয়েছে, স্মার্টফোনের নীল আলোর কারণে মানসিক অবস্থার অবনতি ঘটে। এছাড়াও লাইট সেন্সিটিভিটির সমস্যা দেখা দেয়। এই দুটি কারণগুলো আপনার সন্তানের মেলাতোনিন স্তরের উপর ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলে।

মেলাতনিন একটি হরমোন যা আমাদের শরীরের ঘুম চক্র নিয়ন্ত্রণ করে। যখন রেটিনা দ্বারা প্রচুর পরিমাণে আলো দেখা হয়, তখন মেলাতোনিনের মাত্রা ড্রপ ডাউন হয়। সুতরাং, আপনি কল্পনা করতে পারেন স্মার্টফোনের থেকে নির্গত নীল আলো কিভাবে আপনার সন্তানদের প্রভাবিত করে।

কী করা উচিত?

ঘুমাতে যাওয়ার আগে মোবাইল ফোন তাদের হাত থেকে সরিয়ে নিন। ছবি: সংগৃহীত

প্রথমেই আপনার নিশ্চিত করতে হবে যে, আপনার সন্তানকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে দিবেন না। অবসর সময়ে গল্পের বই পড়া কিংবা খেলাধুলার করার জন্য উৎসাহ দিবেন।

দ্বিতীয়ত ঘুমাতে যাওয়ার আগে মোবাইল ফোন তাদের হাত থেকে সরিয়ে নিন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে দুই একটা ভিডিও দেখার জন্য হলেও মোবাইল ফোন তাদের হাতে দেওয়া যাবে না। বাচ্চাদের রুমেই মোবাইল ফোন রাখা যাবে না।

আপনার সন্তানকে মোবাইল দেওয়া যাবে না, এই কথা বলা হচ্ছে না। কিন্তু ঘুমাতে যাওয়ার অন্তত ২ ঘণ্টা আগে আপনার বাচ্চার কাছে মোবাইল ফোন না রাখাই ভালো।

আজকের পত্রিকা/রিয়া/সিফাত