অস্ট্রেলিয়া ভিসায় যোগ হয়েছে কিছু নতুন ক্যাটাগরি। ছবি-সংগৃহীত

বিদেশে গমনেচ্ছুদের কাছে কোন দেশে যেতে চান প্রশ্ন করলে এক কথায় বেশিরভাগ মানুষ বলে কানাডা বা অস্ট্রেলিয়ার কথা। পছন্দের তালিকায় এই দুইটি দেশ থাকার কারণও বেশ কয়েকটি। সামাজিক নিরাপত্তা, মনোরম পরিবেশ, শিক্ষাব্যবস্থা, সহজলভ্য চাকরি, দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন খাতে এগিয়ে দেশ দুইটি। সহজে ইমিগ্রেশন ভিসা নিয়ে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ-সুবিধা সবচেয়ে বেশি ইউরোপিয় ইউনিয়নভুক্ত দেশ কানাডায়। তবে বাংলাদেশিদের জন্য সহজে ভিসা প্রদান করে অস্ট্রেলিয়া। পূর্বে স্থায়ী বসবাসের সুযোগ অস্ট্রেলিয়ায় একটু কঠিন থাকলেও এখন এটি অনেকটাই সহজ করা হয়েছে।অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের জন্য ভিসা রয়েছে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে। অস্ট্রেলিয়া ইমিগ্রেশন এসব ক্যাটাগরিকে বিভিন্ন সাব ক্লাসে বিভক্ত করেছে। অস্ট্রেলিয়ার হোম অ্যাফেয়ার্সের তথ্যমতে, জনপ্রিয়  কয়েকটি ভিসায় আবেদনের নিয়ম আলোচনা করা হলো-

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

অস্ট্রেলিয়ায় বৈধভাবে কাজ করার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত প্রোগ্রাম হলো সাব-ক্লাস-৪৮২ এবং সাব-ক্লাস ৪০৭(Training Visa)। এই ভিসার ক্ষেত্রে ভিসাপ্রার্থীকে অবশ্যই টিএসএস ভিসার পেশা তালিকার জন্য একটি অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান কর্তৃক মনোনীত হতে হবে। এই ভিসার জন্য আই এলটি এস- এ কমপক্ষে ৪.৫ অথবা ৫ কিংবা, সমমানের ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে। অভিজ্ঞতার ক্ষেত্রে দুই বছর কাজের অভিজ্ঞতা থাকলেই এপ্লাই করা যাবে। মূলত দক্ষ ও অভিজ্ঞ বাংলাদেশিদের জন্য এটা একটা বড় সুযোগ। বাংলাদেশিরা যদি প্রথম থেকেই দ্রুত ও দক্ষতার সঙ্গে ফাইল প্রসেস করে তবে স্বল্প সময়ে এই ভিসা পাওয়া সম্ভব হয়।অস্ট্রেলিয়ার হোম অ্যাফেয়ার্স এর তথ্যমতে, অস্ট্রেলিয়ায় ডিমান্ড লিস্টে ৪৩২টি পেশা রয়েছে। সুতরাং অনেকেই বিভিন্ন সাব ক্লাসে আবেদন করে পরিবারসহ অস্ট্রেলিয়ায় স্থায়ীভাবে বসবাস করার সুযোগ পেতে পারেন।

স্টুডেন্ট ভিসা

বর্তমান সময়ের আন্তর্জাতিকভাবে প্রচলিত মোটামুটি সব বিষয়ের উপর অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার ব্যবস্থা রয়েছে। আর অন্যান্য উন্নত দেশগুলোর তুলনায় অস্ট্রেলিয়ার স্টুডেন্ট ভিসা পাওয়া তুলনামূলকভাবে সহজ। তবে ক্ষেত্র বিশেষে আইএলটিএস এর বিভিন্ন গ্রেড প্রয়োজন হয়ে থাকে। অস্ট্রেলিয়ার  ইউনিভার্সিটি অব মেলবোর্ন, ইউনিভার্সিটি অব কুইন্সল্যান্ড, ইউনিভার্সিটি অব সিডনি, মোনান্স ইউনিভার্সিটি, কারটিন ইউনিভার্সিটি শুধু অস্ট্রেলিয়ার জন্য নয় পুরো পৃথিবীর বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অন্যতম। এ ছাড়াও এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্রাঞ্চ উন্নত দেশগুলোতেও অবস্থিত। সেসব ব্রাঞ্চ থেকে পড়াশোনা করেও সহজে পেতে পারেন অস্ট্রেলিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসা। পড়াশোনা শেষ করে কিছুদিন চাকরি এবং অতঃপর স্থায়ীভাবে পরিবারসহ বসবাস করার সুযোগও পাওয়া যায়।

ভ্রমণ ভিসা

অস্ট্রেলিয়া পৃথিবীর ভ্রমণ পিপাসুদের কাছে তীর্থস্থান হিসেবে পরিচিত। বছরের যেকোনও সময় পরিবার নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন অস্ট্রেলিয়ার এসব স্থানে। ভ্রমণ ভিসার ক্ষেত্রে এখন নিয়ম অনেকটা শিখিল। সঠিক কাগজপত্র ও প্রকৃত কারণ দেখাতে পারলে এই ভিসা দ্রুত সময়ে পাওয়া সম্ভব বলে মনে করা হয়।

এমপ্লয়ার স্পন্সরশিপ এবং এমপ্লয়ার নমিনেশন স্কিম

স্থায়ীভাবে পরিবারসহ এ স্কিমে আবেদন করে বসবাসও কাজ করা যায়। এর মাধ্যমে নাগরিকত্ব লাভ করা সম্ভব। তবে এক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ায় তিন বছর কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হয়। অস্ট্রেলিয়ান কোনো কোম্পানি যদি আপনাকে স্পন্সর করতে ইচ্ছুক হয়, তবে আপনার ভাগ্য খুলে গেল। এটি যোগাড় করা কঠিন হলেও অসম্ভব নয়। এ বিষয়ে অভিজ্ঞ ইমিগ্রেশন আইনজীবীর পরামর্শ গ্রহণের কোনো বিকল্প নেই।

স্থায়ীভাবে বসবাস

অস্ট্রেলিয়ায় স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য সাব-ক্লাস ১৮৯, ১৯০ এবং ৪৮৯ সম্পূর্ণ পয়েন্টের ওপর নির্ভর করে। তবে সাব-ক্লাস ৪৮৯ হলো সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সহজ ভিসা সাব-ক্লাস। এ সাব-ক্লাসগুলো প্রতিটিতে মোট ৬৫ পয়েন্ট করে প্রয়োজন হয়। পয়েন্ট পাওয়া যায় বয়স, কাজের অভিজ্ঞতা, পড়াশোনা, ভাষা এবং বিভিন্ন বিষয়ে চূড়ান্ত দখলের ওপর।

মনোনীত এলাকা ভিত্তিক মাইগ্রেশন চুক্তি (DAMA)

যেসব কাজে কম দক্ষতা প্রয়োজন, এমন কাজের পেশাদারদের জন্য নতুন বছরের শুরুতেই সুখবর আনছে অভিবাসন খ্যাত দেশ অস্ট্রেলিয়া। দেশটিতে তাদের জন্য স্থায়ী বসবাসের সুযোগ দিয়ে রাজ্যভিত্তিক নতুন ভিসা চালু করছে দেশটির অভিবাসন বিভাগ। ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা কম হলেও এ ভিসায় আবেদন করা যাবে। এই ভিসার চাহিদার পেশা তালিকায় ১১৭টি পেশা রয়েছে। পেশাগুলো প্রধানত কৃষি ও আতিথেয়তা শিল্পকে কেন্দ্র করে। পেশাগুলোর জন্য উচ্চকর্ম ও ইংরেজি ভাষা দক্ষতার প্রয়োজন নেই।

প্রারম্ভিক উদ্যোক্তাদের জন্য দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া ভিসা বা Business Migration Visa

অস্ট্রেলিয়া সরকার প্রারম্ভিক উদ্যোক্তাদের জন্য একটি নতুন ভিসা চালু করেছে। এই ভিসা বিদ্যমান ব্যবসা এবং উদ্ভাবন ভিসার চেয়ে একটু ভিন্ন। প্রারম্ভিক উদ্যোক্তা ভিসা অন্যান্য উদ্যোক্তা ভিসার মতো তহবিল ব্যবস্থা বা Funding Management প্রয়োজন নেই। যোগ্য আবেদনকারীদের এই ভিসার জন্য অস্ট্রেলিয়া দেশটিকে একটি শক্তিশালী ব্যবসায়িক প্রস্তাব জমা দিতে হয়। এই ভিসায় IELTS score সহ অথবা IELTS score ছারা উভয়ভাবেই অ্যাপ্লাই করা যায়।

আজকের পত্রিকা/মির