২০৩০ সালের মধ্যে ট্রেনটি পুরোদমে চালু করতে পারলে এর গতি হতে পারে ঘণ্টায় ৩৬০ কিলোমিটার। ছবি: সংগৃহীত

জাপানে বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুততম গতির বুলেট ট্রেনের পরীক্ষামূলক চলাচল সম্পন্ন হয়েছে। ট্রেনটি ঘণ্টায় ৪০০ কিলোমিটার (২৪৯ মেইল) পর্যন্ত পাড়ি দিতে সক্ষম। জাপান দীর্ঘদিন ধরেই ট্রেনটির গতির উন্নতিতে কাজ করছিল। বার্তা সংস্থা সিএনএন’র প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

সিএনএন’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১০ মে শুক্রবার শিনকানসেন বুলেট ট্রেনের আলফা-এক্স প্রযুক্তির এ ট্রেনটির পরীক্ষামূলক চালনা শুরু করে জাপান। আরও তিন বছর ট্রেনটির পরীক্ষামূলক এই চালনা চলবে।

২০৩০ সালের মধ্যে ট্রেনটি পুরোদমে চালু করতে পারলে এর গতি হতে পারে ঘণ্টায় ৩৬০ কিলোমিটার। আর এর মাধ্যমে ট্রেনটি খুব সহজেই বিশ্বের দ্রুততম গতির ট্রেনে পরিণত হবে।

এই ট্রেনটি চীনের ফাক্সিং ট্রেনের চেয়েও বেশি গতির ট্রেন হবে। কারণ ফাক্সিং এর গতি শিকানসেনের কাঙ্ক্ষিত গতির চেয়ে ঘণ্টায় অন্তত ১০ কিলোমিটার কম। যদিও ফাক্সিং নামের চীনা ট্রেনটিও আলফা-এক্স প্রযুক্তিতে তৈরি। তবে ঘণ্টায় ৪০০ কিলোমিটার বেগে চলতে সক্ষম হলেও বাস্তবে এটি তার পূর্ণ সক্ষমতা কাজে লাগাবে না।

জাপানের তৈরি নতুন এ বুলেট ট্রেনের সম্মুখভাগ চোখা নাকের মতো। ট্রেনটিতে মোট দশটি বগি থাকবে। প্রতি সপ্তাহে দুবার করে মধ্যরাতে ২৮০ কিলোমিটার দূরত্বের জাপানের সেনডাই ও আমোরি শহরের মধ্যে ট্রেনটি চলাচল করবে।

বিশ্বের প্রসিদ্ধ দ্রুতগতি সম্পন্ন ট্রেন সার্ভিস শিনকানসেন এর আলফা-এক্স সংস্করণ ভবিষ্যতে এই সেবাকে উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। এই ট্রেনের আগে, মাত্র এক বছর আগে জাপানের দ্রুত গতির শিনকানসেন এন৭০০এস ট্রেনটির পরীক্ষা শুরু করা হয়েছিল।

এই মডেলটি ২০২০ সাল নাগাদ ট্রেন সার্ভিসের নিয়মিত সেবায় যুক্ত হতে পারবে। তবে এর সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ৩০০ কিলোমিটার।

২০২০ সালে টোকিও-তে গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক আয়োজনের প্রস্তুতি হিসেবে বিলাসবহুল নতুন মডেলের ট্রেন চালুর চেষ্টা করছে জাপান।

আজকের পত্রিকা/বিএফকে/এমএআরএস/জেবি