এই বাড়িতেই খুন হন বাংলাদেশি নারী।

নিজের ঘরে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশি নারী খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে তার স্বামীকে আটক করেছে পুলিশ। এ বিষয়ে ৮ মার্চ শুক্রবার শামীমার ভাই পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন শামীমা ও তার স্বামীকে তারা খুঁজে পাচ্ছেন না। এরপর পুলিশ তাদের খোঁজে মাঠে নামে এবং শাহাদাতকে টোকিওর এক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় উদ্ধার করে।

জানা যায়, জাপানের টোকিওর উপকণ্ঠে সায়তামা প্রদেশের মাসুশিগে শহরের এক বাসায় দীর্ঘদিন ধরে থাকতেন বাংলাদেশি শামীমা (৪০) ও তার স্বামী বি এম শাহাদাত হোসেন (৫১)।

শামীমা আক্তার।

পুলিশ সাংবাদিকদের জানায়, শামীমার স্বামী শাহাদাত সোমবার তার স্ত্রীকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করে হত্যার পর নিজে ট্রেনের নিচে পড়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে নিরাপত্তাকর্মীরা উদ্ধার করে তকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। শুক্রবার সন্ধ্যায় পুলিশ সায়তামার ওই বাসা থেকে শামীমার মরদেহ উদ্ধার করে।

শাহাদাত তার স্ত্রীকে খুন করার কথা স্বীকার করেছেন বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় বাংলাদেশিরা বলেন, শামীমা টোকিওর ন্যাশনাল সেন্টার ফর গ্লোবাল হেলথ অ্যান্ড মেডিসিন হাসপাতালে এপিডোমলজি বিভাগের প্রধান ছিলেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে জনসংখ্যা বিজ্ঞান বিভাগের সাবেক এই ছাত্রী একই প্রতিষ্ঠান থেকেই পিএইচডি ডিগ্রি নিয়ে ২০১১ সালে জাপানের এই প্রতিষ্ঠানে গবেষণা শুরু করেন। অন্যদিকে শাহাদাত ছিলেন বেকার।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস/জেবি