বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) কর্তৃক উদ্ভাবিত হয়েছে জলমগ্ন সহিষ্ণু ধানের জাত বিনা১১।

আকস্মিক ২০২৫দিন জলাবদ্ধতায় থাকার পরও ধান উৎপাদনে সক্ষম এই জাতটি। বিনাধান১১ এর প্রচার সম্প্রসারণের লক্ষে ময়মনসিংহের চরগোবাদিয়া গ্রামে মাঠ দিবস পালন করা হয়।

বিনার ফলিত গবেষণা সম্প্রসারণ বিভাগ (এআরইডি) ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে বিনার প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা শাখার পরিচালক . মো. জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গবেষণা শাখার পরিচালক . হোসনে আরা বেগম।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিনার বিজ্ঞানী . মঞ্জুরুল আলম মন্ডল, . শামছুন্নাহার বেগম ময়মনসিংহের অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা সেলিনা পারভিন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিনার বিজ্ঞানী মো. ইমদাদুল হক।  

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিনার বিজ্ঞানী মো. আব্দুর রউফ। পরে কৃষকদের মাঝে বিনা শস্য বিতরণ করা হয়।

এসময় উপস্থিত কৃষকদের উদ্দেশ্যে বক্তারা বলেন, কৃষকদের জন্যই কাজ করে বিনা। এখান থেকে সেবা নিয়ে কৃষক উপকৃত হলেই আমাদের গবেষণা সার্থক। বিনা১১ একটি আগাম জলমগ্ন সহিষ্ণু ধানের জাত।

দীর্ঘ পাঁচ বছর গবেষণার পর এটা মাঠ পর্যায়ে সম্প্রসারণ করা হয়েছে। ১১০১২০ দিনে ফসল ঘরে তুলা সম্ভব। এই জাতটিতে রোগবালাইয়ে আক্রমণের হার কম। উৎপাদন প্রতি একরে ৪৫৫৫ মন।

তানিউল করিম জীম