ছেলে হোক মেয়ে হোক, দুটি সন্তানই যথেষ্ট। ছবি: সংগৃহীত

জনসংখ্যা নীতিতে আবার সেই ‘ছেলে হোক মেয়ে হোক, দুটি সন্তানই যথেষ্ট’ স্লোগানে ফিরে এসেছে পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর। এক দশকের বেশি সময় ধরে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের মূল স্লোগান ছিল- ‘দুটি সন্তানের বেশি নয়, একটি হলে ভালো হয়।’

সরকারের এই অবস্থান পরিবর্তনের ফলে দেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ওপর প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন জনসংখ্যা বিশেষজ্ঞদের অনেকেই। সরকারি কর্মকর্তা ও জনসংখ্যা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশ জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে বেশ কিছু ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করেছে। স্বাধীনতার সময় ১৫-৪৯ বছর বয়সী নারী গড়ে ছয়টির বেশি সন্তান জন্ম দিতেন। অর্থাৎ তখন মোট প্রজনন হার (টিএফআর) ছিল ৬ দশমিক ৪। বর্তমান টিএফআর নিয়ে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) বলছে, ২ দশমিক শূন্য ৫। অন্যদিকে জনমিতি জরিপ বলছে, ২ দশমিক ৩।

স্বাধীনতার সময় আধুনিক জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করতেন ৮ শতাংশ দম্পতি। এখন সেই হার ৬৩ শতাংশ। জাতীয় জনসংখ্যা নীতিতে ২০১৫ সালের মধ্যে প্রতিস্থাপনযোগ্য জন-উর্বরতা অর্জন করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। একই সময়ে আধুনিক জন্মগ্রহণ পদ্ধতি গ্রহীতার হার ৭২ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা ছিল। দুটির কোনোটিই অর্জিত হয়নি। দেশে এখনো মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যু অনেক বেশি।

বিবিএসের সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশের মোট জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৫৫ লাখ। দেশের বাইরে থাকা প্রায় ১ কোটি প্রবাসী এই হিসাবের বাইরে। নগররাষ্ট্র ছাড়া বিশ্বে সবচেয়ে জনবহুল দেশ বাংলাদেশ। এ দেশে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ১ হাজার ২৬৫ মানুষ বাস করে (চীনে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ১৫০, ভারতে ৪৫০ জন)। প্রতি বছর মোট জনসংখ্যার সঙ্গে নতুন করে প্রায় ৩২ লাখ মানুষ যোগ হচ্ছে। জনসংখ্যার এই চাপ পড়ছে জমির ওপর, খাদ্যের ওপর, শিক্ষা-স্বাস্থ্যের ওপর। এক সময় বলা হতো, জনসংখ্যা দেশের এক নম্বর সমস্যা।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর সূত্র জানায়, ‘ছেলে হোক মেয়ে হোক, দুটি সন্তানই যথেষ্ট’ স্লোগান আশির দশকের। ২০০৪ সালে জনসংখ্যা দিবসে ‘দুটি সন্তানের বেশি নয়, একটি হলে ভালো হয়’ স্লোগানটি ব্যবহার করা হয়, যা ২০১২ সালে জাতীয় জনসংখ্যা নীতিতে জোরদার করার কথা বলা হয়। সরকার এক সময় এক সন্তানের নীতি গ্রহণ করা যায় কি না, সেই চিন্তাও করেছিল। তবে বর্তমান সরকারের অনেকেই জনসংখ্যাকে দেশের জন্য বড় সমস্যা মনে করেন না।

২০১৮ সালের অক্টোবরে স্লোগান পরিবর্তনের একটি পরিপত্র জারি করে পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর। পরিপত্রে ‘ছেলে হোক মেয়ে হোক, দুটি সন্তানই যথেষ্ট’কে মূল স্লোগান হিসেবে গ্রহণ করার কথা বলা হয়। এর ফলে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ওপর প্রভাব পড়াকে স্বাভাবিক মনে করছে বিশেষজ্ঞরা।

আজকের পত্রিকা/সিফাত