সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশায় মাধ্যমিক স্কুলের সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছোট বোনের বাল্যবিবাহ ভেঙ্গে দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন কলেজ পড়ুয়া এক বড় ভাই।

সিলেটের একটি বেসরকারি কলেজের শিক্ষার্থীর তৎপরতায় নিজের ছোট বোনের বাল্যবিবাহ ঠেকাতে পেরে উপজেলার নানা শ্রেণির পেশার লোকজনের প্রশংসা কুড়িয়েছেন।

জানা গেছে, জেলার ধর্মপাশার জয়শ্রী ইউনিয়নের ১৩ বছর বয়সী ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে একই উপজেলার সদর ইউনিয়নের ২৫ বছর বয়সী এক যুবকের রোববার বিয়ের দিনক্ষণ নির্ধারণ করা হয়।

ওই ছাত্রীর বড় ভাই বাল্যবিবাহে বাধা দিলেও তার অন্য অভিভাবকরা নাছোড়বান্দা। পরে রোববার দুপুরের মধ্যে বিয়ের সব আয়োজন শেষ করা হয়।

অপরদিকে বোনের বাল্যবিবাহ ঠেকাতে না পেরে অভিমানে দিন কয়েক পূর্বেই বাড়ি ছেড়ে সিলেটে চলে যান সেই বড় ভাই। পরে রোববার সকালে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে মোবাইলে বিষয়টি অবহিত করেন। পরে বরযাত্রীরা আসার আগেই কনে বাড়িতে কয়েকজন ইউপি সদস্য, নারী নেত্রী ও গ্রামের মুরুব্বীদের নিয়ে হাজির হন ইউপি চেয়ারম্যান। ইউপি সদস্যরা ও গ্রামের মুরুব্বীরা বিয়ে বাড়িতে হাজির হলে কৌশলে কনের পিতা বাড়ি থেকে সটকে পড়েন।

এরপর মেয়ের মাকে বুঝানোর পর ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া অবধি মেয়েকে বিয়ে দেবেন না বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

সোমবার ধর্মপাশার জয়শ্রী ইউপি চেয়ারম্যান সঞ্জয় রায় চৌধুরী বললেন, নিজের ছোট বোনের শিক্ষাজীবন ও বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষায় সহোদর ভাই নিজেই আমাকে মোবাইলে অবহিত করে শেষ অবধি যেভাবে বিয়ে ঠেকাতে পেরেছে সেক্ষেত্রে ভাই বোন দুজনই প্রশংসার দাবি রাখে।

-আজকের পত্রিকা/সুনামগঞ্জ