ছাত্রী শ্লীলতাহানির অভিযোগে পরিচালক অসিত জয়ধরলূক ও সহকারি শিক্ষক মোতালেব আটক।

চরফ্যাশন পৌর শহরের আদর্শপাড়া অনির্বাণ ক্যাডেট স্কুল এ- কলেজে শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রী শ্লীলতাহানি অভিযোগে স্কুলের পরিচালক অসিত কুমার জয়ধর ও অভিযুক্তকারী বখাটে শিক্ষক মোতালেব মাতাব্বরসহ দু’জনকে আটক করে পুলিশ সোমবার জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। সাথে সাথে প্রতিষ্ঠান সিলগালা করে দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চরফ্যাশন থানা পুলিশের এস আই অজিজের নের্তৃত্বে সঙ্গী পোর্স নিয়ে বিশেষ অভিযান চালিয়ে সোমবার দুপুরেই ওই পলাতক অভিযুক্ত লম্পট শিক্ষক মোতালেবকে বাজার থেকে আটক করেছে। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন আখন ও উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা মো.রুহুল আমিনের নের্তৃত্ব প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

অভিযুক্তকারী শিক্ষক আটক মোতালেব উপজেলার শশীভূষণ থানার হাজারীগঞ্জ ইউনিয়নের মো. হোসেন মাতাব্বরের ছেলে ও অসিত কুমার জয়ধরের বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার বাসিন্দা।

পিতার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার চরফ্যাশন পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের আদর্শপাড়া অনির্বাণ ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজের সান্ধ্যকালিন কোচিং সেন্টোরে ক্লাশ শেষ হওয়ার পর শিক্ষক মো. মোতালেব সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী (১৩) কে জোড় পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টায় শ্লীলতাহানি করে। এ অবস্থায় ছাত্রীর ডাকচিৎকারে পথচারিরা এগিয়ে আসলে শিক্ষক মোতালেব পালিয়ে যায়। পরে ওই ছাত্রী বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি তার বাবা-মাকে জানায়।

এ ঘটনায় রবিবার কলেজের পরিচালক অসিত কুমার জয়ধর লুককে ছাত্রীর পরিবার বিষয়টি জানিয়েছেন। কিন্তু অভিযুক্ত শিক্ষক মোতালেবের বিরুদ্ধে পরিচালক অসিত কুমার জয়ধর লূক কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করে উল্টো অভিযুক্ত শিক্ষককের পক্ষে অবস্থান নিয়ে তাকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করেন।

এ ঘটনায় ছাত্রী নিজেই চরফ্যাশন থানায় ওই কলেজের শিক্ষক মোতালেব ও পরিচালক অসিত কুমার জয়ধর এর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। এর আলোকে অভিযুক্ত শিক্ষক ও পরিচালককে আটক করা হয়েছে।

চরফ্যাশন থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আজিজ বলেন, ভিকটিমের অভিযোগের ভিত্তিতে কলেজের শিক্ষক মো. মোতালেব ও পরিচালক অসিত কুমার জয়ধরলূককে আটক করা হয়েছে। এদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এসব বিষয়ে চরফ্যাশন অনির্বাণ ক্যাডেট স্কুল এ- কলেজে অধ্যক্ষ মোঃ নাজিম উদ্দিন বলেন, যে অপরাধি তার শাস্তি হোক এটাই প্রত্যাশা করি। প্রকৃত অপরাধীকে অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে।

চরফ্যাশন থানার অফিসার ইনচার্জ শামসুল আরেফীন বলেন, অভিযুক্তকারী এবং সহায়তাকারীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তাদেরকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আমির হোসেন/চরফ্যাশন