বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

সম্প্রতি ঘোষণা করা হয় ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটি। এর মধ্যেই পদবঞ্চিত ছাত্রলীগের একটি অংশ অভিযোগ তুলেন- ঘোষিত ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করে বিবাহিত ও অছাত্রদের পদ দেওয়া হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাদের খুঁজে বের করতে তদন্ত কমিটি করার কথা জানিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। ১৪ মে মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

পদবঞ্চিতদের অভিযোগ, সদ্য ঘোষিত ছাত্রলীগের ৩০২ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে অন্তত ১০ জন বিবাহিত। তারা হলেন- সহ সভাপতি সোহানী হাসান তিথি, সাদিক খান, আবু সাঈদ, এস এম আতিক হাসান, ইশাত কাসফিয়া ইরা, উপ-পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক রুশি চৌধুরী, উপ-গণযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক নাজমুল হুদা সুমন, উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক আফরিন লাবণী, সহ সম্পাদক সামিহা সরকার, আঞ্জুমান আরা অনু। তবে ছাত্রলীগের সভাপতিকে নিয়ে বিয়ের গুঞ্জন উঠে, যা ছাত্রলীগের সাবেক কমিটির এক নেত্রীর ফেসবুক পোস্টে দেখা যায়।

এছাড়াও আজকের পত্রিকার কাছে সভাপতির সঙ্গে এর নারীর জড়িয়ে ধরার ছবি এসেছে। যাকে সভাপতির স্ত্রী বলে ফেসবুকে পোস্ট করছেন অনেকেই।
এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌথুরী শোভন বলেন, বর্তমান তথ্য প্রযক্তির যুগে ফেইক আইডি খুলে ছবি বানিয়ে অনেক কিছু করা যায়, সম্ভব।

তবে পদ পাওয়া কয়েকজনের বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রকাশ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যেহেতু বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে এসেছে, আমরা এই বিষয়ে ছাত্রলীগের যে সাবেক নেতৃবৃন্দ আছে তাদের দ্বারা সমন্বয় করে একটি কমিটি গঠন করে দেবো। যদি সত্যি এগুলো প্রমাণিত হয়, তাহলে আমরা ব্যবস্থা নেবো।

কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে? এমন প্রশ্নে ছাত্রলীগ সভাপতি শোভন বলেন, সেই পদ শূন্য ঘোষণা হলে সেখানে আমরা যোগ্য সদস্যকে দিয়ে পূরণ করবো।

আজকের পত্রিকা/কেএফ