এমনিতেই পেঁয়াজের লাগামহীন দামে নাকাল সাধারণ ক্রেতারা। এর উপর চালের মুল্য বৃদ্ধি বেসামাল করে তুলেছে বাজার পরিস্থিতি। মূল্যবৃদ্ধির জন্য পাইকার ও মিলারদের দুষছেন খুচরা বিক্রেতারা।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে পাইকারি থেকে খুচরা সব স্তরে বেড়েছে চালের দাম। এতে ক্ষুদ্ধ ক্রেতারা। খুচরা পর্যায়ে বিভিন্ন ধরণের চিকন চাল কেজিতে বেড়েছে ৫ থেকে ৮ টাকা পর্যন্ত। আর মোটা চালের জন্য কেজিতে বাড়তি ৩ থেকে ৪ টাকা গুণতে হচ্ছে।

প্রতি কেজি মিনিকেট বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা কেজিতে। বিআর আটাশ ৩৪ থেকে ৪০ টাকা। নাজির শাইল ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। দাম বাড়ানোর জন্যে পাইকারদের দায়ী করছেন খুচরা বিক্রেতারা। তবে অভিযোগ মানতে নারাজ পাইকারি বিক্রেতারা। তাদের দাবি, অস্থিতিশীল বাজারের জন্যে দায়ি মিলার সিন্ডিকেট।