চরফ্যাশন উপজেলার চরমানিকা গ্রামের ২০ বছরের যুবতি গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ঘটনার মূল নায়ক আহম্মদ(২৫)কে পুলিশ পৌর ৮নং ওয়ার্ডের নিজ বাড়ী থেকে আটক করেছে। এ ঘটনায় যুবতি বাদী হয়ে ৩জনকে সনাক্ত করে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা দায়ের করেছে।

পুলিশ জানায়, চরমানিকা গ্রামের ২০ বছরের যুবতিকে চরফ্যাশন পৌর সভার ৮নং ওয়ার্ডের সালমা চাকুরি দেয়ার নামে ১০হাজার টাকা গ্রহণ করেছে। যুবতিকে শনিবার বিকালে সালমার বাড়ীতে দেখা করতে বলে। সেখানে যুবতি গেলে আহম্মদ(২৫)সহ ৩জনে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

সে চরফ্যাশন থানায় এসে অবগত করলে রবিবার বিকাল ৩.৩৫ সহকারী পুলিশ সুপার(চরফ্যাশন সার্কেল) শেখ সাব্বির হোসেনের নেতৃত্বে ফোর্স নিয়ে ঘটনার মূল নায়ক আহম্মদকে পৌর সভার ৮নং ওয়ার্ডের নিজ বাড়ীর বসত ঘর থেকে আটক করেছেন। স্থানীয়দের অভিযোগ, সালমা তার বাসায় দীর্ঘদিন যাবৎ অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে। কেই এই বিষয়ে কথা বললে তাদের উপর চড়াও হয়।

চরফ্যাশন থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি শামসুল আরেফীণ বলেন, পৌর সভার ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সালমা নিজ ঘরে নিয়ে চরমানিকা গ্রামের যুবতিকে গণধর্ষনে সহায়তা করেছে। তাকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে থানা আনা হয়েছে।

গণর্ধষণের মূলনায়কসহ ৩জনকে সনাক্ত করে নারী ও শিশু দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ধর্ষক আহম্মদকে সোমবার জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে। বাকী আসামীদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

আমির হোসেন/চরফ্যাশন