মরদেহ। প্রতীকী ছবি

চরফ্যাশন উপজেলার বাস টার্মিনাল এলাকায় যাত্রীবাহী বাসের ছাদ থেকে বাস মালিক সোহাগ ভুঁইয়া (৩৫) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানায়, সোমবার দিবগত রাত সোয়া ১২টায় হাজি কে আলি এন্টারপ্রাইজ একটি বাস থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। সোহাগ একই উপজেলার আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের মৃত আব্দুল বারেকের ছেলে।

এ ঘটনায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জন্য জিয়াউর রহমান নামে একজনকে আটক করা হয়।

স্থানীয়রা জানায়, স্থানীয়রা বাস টার্মিনালের তৃতীয় তলা থেকে (বিদ্যুতের আলোতে) লোকজন হাজি-কে আলি এন্টারপ্রাইজ নামের বাসের ছাদে সোহাগের লাশ দেখতে পায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে এবং এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জিয়াউর রহমান নামে এক বাস স্টাফকে আটক করে।

একটি সূত্র জানায়, প্রায় দুই সপ্তাহ আগে সোহাগের স্ত্রীর বড় ভাই জিয়াউর রহমানের সাথে বাসের টাকা উঠানো নিয়ে সোহাগের কথা কাটাকাটি হয়।

এক সময় ঘটনাটি হাতাহাতির পর্যায় চলে যায় এবং জিয়াকে বাসের সুপারভাইজারের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়। এ হত্যার সাথে এই ঘটনার সূত্র থাকতে পারে বলে প্রাথমিক ধারণা করছে অনেকে।

চরফ্যাশন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুল আরেফিন জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিয়াউর রহমান নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে চরফ্যাশন থানায় একটি হত্যার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে। আমরা মূল রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষত হব।

আমির হোসেন/চরফ্যাশন