চরফ্যাশন উপজেলার বিছিন্ন দ্বীপ পর্যটনের অপার সম্ভাবনাময় দ্বীপের নাম চর কুকরি মুকরিতে যাতায়াতের জন্যে আধুনিক মানের ১০টি নৌ-যান বিতরণ করা হয়েছে।

শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় এই নৌ-যান উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, পিকেএসএফ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ (প্রাক্তন সিনিয়র সচিব) এবং উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ ফজলুল কাদের।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রুহুল আমীন, এফডিএ-এর নির্বাহী পরিচালক মো: কামাল উদ্দিন এবং চর কুকরি মুকরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাসেম মহাজন।

বক্তরা বলেন, উপকূলীয় জেলা ভোলা থেকে চরফ্যাশন উপজেলার বিচ্ছিন্ন জনপদ একটি ইউনিয়ন হল চর কুকরি মুকরি। দ্বীপের পূর্বদিকে প্রমত্তা মেঘনা ও শাহাবাজপুর চ্যানেল।

দক্ষিণান্তে বঙ্গোপসাগর, পূর্বে বুড়াগৌড়াঙ্গ এবং মেঘনার মিলনস্থল। একদিকে বঙ্গোপসাগরের উত্তাল ঢেউ, বৈরী বাতাস, চিরসবুজ গাছ-গাছালি, মন ভুলানো সমুদ্র সৈকত, মায়াবী হরিণের দল আর অসংখ্য নাম না জানা পাখ-পাখালি বিস্তৃত সবুজ বনাঞ্চল এই দ্বীপটিকে ভ্রমণ বিলাসীদের তীর্থ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। কুকরি মুকরির ৯০% মানুষের পেশা মৎস্য আহরণ। কিন্তু বছরের প্রায় ৫মাস তারা কোন অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকে না।

যদি চর কুকরি মুকরির নৈসর্গিক সৌন্দর্য দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যটকদের কাছে উপস্থাপনের জন্য কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন করা যায় তাহলে উক্ত অঞ্চলের অর্থনৈতিক ভিত্তিটা শক্ত হতে পারে।

এসব অঞ্চলের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বিনোদনের পর্যাপ্ত সুযোগ সৃষ্টি, পর্যটন আকর্ষনের বহুমাত্রিকতা বৃদ্ধি, নিরাপত্তা বিধান, পর্যটন খাতে বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশন সৃষ্টি, বাজার সংযোগ এবং সেবা প্রদানকারীদের দক্ষতা উন্নয়নের লক্ষ্যে পিকেএসএফ এবং আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিল (ইফাদ) এর অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন এর আওতায় সহযোগী সংস্থা ‘পরিবার উন্নয়ন সংস্থা (এফডিএ)’ “চর কুকরি মুকরিতে কমিউনিটি ভিত্তিক ইকো-ট্যুরিজম উন্নয়ন” শীর্ষক ভ্যালু চেইন উপ-প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

বিগত দিনে উপ-প্রকল্পের মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নাধীন কর্মকান্ডের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন উর্ধোনত কর্মকর্তাগণ।

পরির্দশন শেষে অতিথিগণ উপ-প্রকল্পের কার্যক্রমের সার্বিক অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন।
-আমির হোসেন