চরফ্যাশন উপজেলার আবদুল্যাহপুরের আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ সিরাজুল ইসলাম (৫০) ঢাকাতে পরিবার নিয়ে ভালভাবে দিন কাটছিল। গত ১৬ এপ্রিল আহত সিরাজুল ইসলাম এমভি কর্ণফুলি-১৩ জাহাজ যোগে ঢাকা হতে বাড়ি ফিরেন। জাহাজ খানা বেতুয়া লঞ্চঘাটে পৌঁছার পর এই রুটের ফারহান ও তাসরিফ কোম্পানী জাহাজের আধিপত্য ও খাম খেয়ালী কারনে ২ পা হারান আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম।

ঘাট সুত্রে ও জানা যায়, ফারহান ও তাসরিফ অনেক দিন ধরে ঢাকা বেতুয়া রুটে তাদের জাহাজ চলছিল।

ঘটনার দিন কার্ণফুলী জাহাজ হতে যাত্রী নামছিল। অনেক পর ফারহান ও তাসরিফ জাহাজ ঘাটে ভিড়ার সময় ২ পাশ থেকে কর্ণফুলী জাহাজকে আর্নি দিয়ে মারাত্মক ভাবে আক্রমন করে। তে জাহাজে থাকা অনেক যাত্রীরা লাফ দিয়ে নদীতে ঝাপিয়ে প্রাণ বাঁচায়। তাতে জাহাজে থাকা যাত্রীরা ও চরফ্যাশন বাজার ব্যবসায়ী অনেকে ওই জাহাজে ছিল।

উপস্থিত যাত্রী সিরাজুল ইসলাম জাহাজ থেকে নামার জন্য জাহাজের সামনে দাড়ানো ছিল।

ফারহান ও তাসরিফ জাহাজের ধাক্কায় কর্ণফুলী জাহাজের চাপায় সিরাজের ২ পা ভেঙ্গে যায়। তৎক্ষনিক কর্নফুলী জাহাজ কর্তৃপক্ষ সিরাজুল ইসলামকে দ্রু চিকিৎসার জন্য চরফ্যাশন হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার সিরাজুল ইসলামকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করেন। তখন ফারহান জাহাজ র্কতৃপক্ষ সামান্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় পরে আর খোঁজ নেয়নি। এতে যাত্রীদের ক্ষোভের সৃস্টি হয়।

বর্তমানে সিরাজুল ইসলাম ২ পা হারিয়ে পঙ্গুত্ব ভাবে জীবন যাপন করছে।

এদিকে সিরাজুল ইসলামের চিকিৎসার ব্যাপারে কোন জাহাজ কর্তৃপক্ষ তার উন্নত চিকিৎসার জন্য এগিয়ে আসেনি। আহত সিরাজুল ইসলাম বলেন, তিনি আর কোন দিন সুস্থ্য ভাবে চলা ফেরা করতে পারবেনা ডাক্তার তার উন্নত চিকিৎসার জন্য বলেন। তাই আহত সিরাজুল ইসলাম সমাজের বিত্তবানদেন সহায়তা করার আহবান জানান।

তার মেয়ে সায়মা ও সাদিয়া আবেগ কন্ঠে বলেন, তাদের পিতার অবস্থার কারনে তাদের লেখা পড়াব বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সায়মা অর্নাস ২য় ও সাদিয়া অর্নাস ১ম বর্ষে লেখাপড়া করে। তাদের পিতার চিকিৎসার ব্যাপের যা সম্পদ ছিল বিক্রি করে দিয়েছে। তারা লেখা পড়া করবে কিভাবে।

আহত সিরাজুল ইসলাম কে চরফ্যাশন মনপুররা জননন্দিত নেতা আলহাজ্ব আবদুল্যাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে একাদিকভার চেক দিয়েছেন। মাঝে মধ্যে তার শারিরিক খোঁজ খবর নেন।

-আমির হোসেন/চরফ্যাশন