মাহমুদ উল্লাহ্‌
বিজনেস করেসপন্ডেন্ট

রেস্টুরেন্ট উদ্বোধন। ছবি: সেইন্টস ক্যাফে এবং ওজোন ক্যাফে

সম্প্রতি বন্দরনগরী চট্টগ্রামের পেনিনসুলাতে উদ্বোধন হয়ে গেল দুটি রেস্টুরেন্টের। নীচতলায় বেকারি এবং ব্রুয়িং ক্যাফে ‘সেইন্টস ক্যাফে’ এবং ১৭ তলার উপরে খোলা সুইমিং পুলের পাশে অনবদ্য প্রিমিয়াম রেস্টুরেন্ট ‘ওজোন লাউঞ্জ’।

সম্প্রতি সেইন্টস ক্যাফে’তে এক মনোমুগ্ধকর আয়োজনের মাধ্যমে রেস্টুরেন্ট দুটির উদ্বোধন করেন হোটেল পেনিনসুলার চেয়ারম্যান জনাব মাহবুব-উর-রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তফা তাহসিন আরশাদ এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। এসময় আরও উপস্তিত ছিলেন গায়িকা জেফার, অভিনেত্রী শেহতাজ, রাবা খান, মডেল ইন্দ্রানী, মাশিয়াত, তৃণ, লিন্ডা, জাকিয়া, জলিসহ বিনোদন জগতের অনেকে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্ষেত্রের অভিজাত অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন যেমন- উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব এবং আরও অনেকে। প্রোগ্রামটিতে ছিল বিভিন্ন স্টাইলের বারিস্তা শো, অ্যাঞ্জেলস ওয়াক, কেক ব্লাস্ট, ফায়ার স্পিনিং, পুলসাইড ডিজে ইত্যাদির মতো পারফরম্যান্সের এক অনন্য সংমিশ্রণ।

পরিশীলিত, প্রাণবন্ত ‘সেইন্টস ক্যাফে’ দিনরাত ২৪ ঘন্টা খোলা থাকে। তাই রাত যতই হোক খেতে চাইলে চট্টগ্রাম শহরে আর কোন সমস্যাতেই পড়তে হবেনা। অন্যদিকে হোটেলের ছাদে ১৭ তলার উপরে প্রিমিয়াম ঘরানার ‘ওজোন লাউঞ্জ’। পাশেই সুইমিং পুল আর চোখের সামনে পুরো চট্টগ্রাম শহরের স্কাইলাইন। যে কোন ধরনের উৎসব বা উদযাপনের জন্য এরকম জায়গা চট্টগ্রামে এরকম বলতে গেলে নেই।

চট্টগ্রামের নাইট লাইফে চমৎকার সংযোজন এই রেস্টুরেন্ট দুটি। খাবার নতুনত্ব, বিচিত্রতা, অন্দরসজ্জা সব মিলিয়ে অতিথিদের মনকে সর্বদাই চঞচল করে তুলবে। প্রতিভাবান আন্তর্জাতিক শেফ নিয়মতি আকর্ষনীয় এবং সৃুস্বাদু খাবারের রেসিপি নিয়ে আসবেন নিয়েমিত। জানালেন বিখ্যাত আন্তর্জাতিক শেফ শুভব্রত মিত্র। সেইন্টস ক্যাফে এবং ওজোন লাউঞ্জ দুটিরই স্বত্বাধিকারী হোটেল পেনিনসুলা।

উদ্বোধনের সময় মাহবুব-উর-রহমান, চেয়ারম্যান, হোটেল পেনিনসুলা বলেন, ‘চট্টগ্রাম সবসময়ই আন্তর্জাতিক অতিথিদের ভীড় লেগে থাকে। ব্যবসায়িক বা ভ্রমন যে কাজেই আসুকনা কেন, চট্টগ্রাম সবসময় বিদেশীদের অতিথেয়তা দিয়ে তাদের মন জয় করে নিয়েছে। এইসব আতিথিরা সবসময় ভাল সার্ভিস, ভাল পরিবেশ এবং ২৪ ঘন্টা খোলা থাকে এরকম জায়গার খোজ করে। সেটা মাথায় রেখেই আমরা সেইন্টস ক্যাফে এবং ওজোন লাউঞ্জ নিয়ে এসেছি। পাশাপাশি রেস্টুরেন্ট দুটি চট্টগ্রামের তরুণদের লাইফস্টাইল ডেসিটনেশন হয়ে উঠবে বলে আমার বিশ্বাস।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ম্যানেজিং ডিরেক্টর মোস্তফা তাহসিন আরশাদ বলেন, ‘ভার্সেটালাইটি এবং সার্ভিস বরাবরই পেনিনসুলার সবচেয়ে শক্তিশালী দিক। সেইন্টস ক্যাফে এবং ওজোন লাউঞ্জের ক্ষেত্রে আমরাও একই গৌরব অর্জন করব।’

‘সেইন্টস ক্যাফে সম্ভবত এরকম একটি জায়গা যার জন্য যুবক গ্রাহকরা দীর্ঘকাল ধরে অপেক্ষা করছিলেন। এরকম একটি আমরা চট্টগ্রামে যথাযথ ক্যাফে সংস্কৃতির পথিকৃৎ হিসেবে শুরু করতে পেরে আমরা অবশ্যই গর্বিত।’ বলছিলেন পেনিনসুলার জেনারেল ম্যানেজার মিঃ মোশতাক লুহার।

আজকের পত্রিকা/এমইউ