মরদেহ। প্রতীকী ছবি

দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাটে চোলাই মদ পান করে মাতাল অবস্থায় স্ত্রীকে হত্যার পর বিষপান করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন এক আদিবাসী স্বামী। ১৭ জুন সোমাবার ভোররাতে ঘোড়াঘাট উপজেলার কালুপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত স্ত্রীর নাম কেরিনা মুরমু (৩৫)। তিনি ঘোড়াঘাট উপজেলার কালুপাড়া গ্রামের আদিবাসী রবিন মার্ডীর (৪৫) স্ত্রী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, স্বামী রবিন মার্ডী ও স্ত্রী কেরিনা মুরমু প্রায়ই চোলাই মদ পান করে মাতাল অবস্থায় একে অপরকে মারপিট করত। সোমাবার মধ্যরাত থেকে তারা চোলাই মদ খেয়ে মাতলামি শুরু করে। এ

কপর্যায় তারা একে আপরকে শাবল ও খুন্তি দিয়ে আঘাত করে। এ সময় আশপাশের লোকজন তাদের চিৎকারে ঘুম থেকে জেগে দেখেন স্ত্রী কেরিনা মুরমু মাটিতে মৃত অবস্থায় পড়ে আছে। স্ত্রী মারা গেছে শুনে স্বামী রবিন মার্ডী বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালান।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে রবিন মার্ডীকে উদ্ধার করে ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে পুলিশি হেফাজতে তার চিকিৎসা চলছে। সকালে কেরিনা মুরমুর মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি শাবল ও খুন্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে চোলাই মদ পান করে মাতাল অবস্থায় স্ত্রীকে হত্যার পর বিষপান করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন এক আদিবাসী স্বামী। সোমাবার ভোররাতে ঘোড়াঘাট উপজেলার কালুপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত স্ত্রীর নাম কেরিনা মুরমু (৩৫)। তিনি ঘোড়াঘাট উপজেলার কালুপাড়া গ্রামের আদিবাসী রবিন মার্ডীর (৪৫) স্ত্রী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, স্বামী রবিন মার্ডী ও স্ত্রী কেরিনা মুরমু প্রায়ই চোলাই মদ পান করে মাতাল অবস্থায় একে অপরকে মারপিট করত। সোমাবার মধ্যরাত থেকে তারা চোলাই মদ খেয়ে মাতলামি শুরু করে। একপর্যায় তারা একে আপরকে শাবল ও খুন্তি দিয়ে আঘাত করে। এ সময় আশপাশের লোকজন তাদের চিৎকারে ঘুম থেকে জেগে দেখেন স্ত্রী কেরিনা মুরমু মাটিতে মৃত অবস্থায় পড়ে আছে। স্ত্রী মারা গেছে শুনে স্বামী রবিন মার্ডী বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালান।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে রবিন মার্ডীকে উদ্ধার করে ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে পুলিশি হেফাজতে তার চিকিৎসা চলছে। সকালে কেরিনা মুরমুর মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি শাবল ও খুন্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এ ব্যাপারে ঘোড়াঘাট উপজেলার ১নং বুলাকিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লাবলু মিয়া জানান, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ লাগতো।

ঘোড়াঘাট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস