ধর্ষণ। প্রতীকী ছবি

চায়ের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ওমান প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের শিকার নারী বুধবার থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে পুলিশ ধর্ষক আলম মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে।

বিশ্বনাথ নতুন বাজারের আছকির মিয়ার কলোনিতে ৫ আগস্ট ধর্ষণের এই ঘটনা ঘটে। আলম মিয়া সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার মুকসেদপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে।

বৃহস্পতিবার তাকে সিলেট আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান এসআই মিজানুর রহমান। আলম মিয়া বিশ্বনাথ উপজেলার জানাইয়া এলাকার লম্বা কলোনিতে বসবাস করে।

ওই নারীর অভিযোগ, তার মা স্বামী পরিত্যক্তা। তাদের গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার পুরান লাউয়েরগড় গ্রামে। দীর্ঘদিন ধরে তার মা ভাইবোনদের নিয়ে বিশ্বনাথে ওই কলোনিতে থেকে দিনমজুরের কাজ করেন। আলম মিয়া প্রায়ই তার মায়ের ঘরে আসা-যাওয়া করতো।

ঘটনার ১০ দিন আগে চট্টগ্রাম থেকে মায়ের বাসায় বেড়াতে আসেন তিনি। এরপর তার মা তাকে কলোনিতে রেখে ছোট ভাইবোনকে সঙ্গে নিয়ে নানার বাড়ি সুনামগঞ্জে চলে যান।

রাতে দোকান থেকে চা নিয়ে আলম মিয়া তাকে খেতে দেয়। চা খাওয়ার পর অচেতন হয়ে পড়লে গভীর রাতে আলম মিয়া তাকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ করে। পরদিন তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।

-আজকের পত্রিকা/সুনামগঞ্জ